পদ্মা সেতুর অগ্রগতি ৫০ শতাংশ: সেতুমন্ত্রী

সমাজের কথা ডেস্ক॥ পদ্মা সেতুর কাজের ৫০ শতাংশ অগ্রগতির কথা জানিয়ে যথাসময়ে নির্মাণ শেষ করার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
বুধবার মুন্সীগঞ্জে কয়েকটি সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, পদ্মা সেতুর সামগ্রিক অগ্রগতি ৫০ শতাংশ। মূল সেতুর কাজ অনেক এগিয়ে গেছে।
তিনি পদ্মা নদীকে আমাজানের সঙ্গে তুলনা করেন এবং এ নদীর নিচে ‘অনিশ্চিত পরিস্থিতি’ ও গভীরতা মিলিয়ে কিছু ‘টেকনিক্যাল সমস্যা’ আছে বলে জানান।
পদ্মা সেতুর দ্বিতীয় স্প্যান বসতে আরেকটু সময় লাগবে, যেটা মধ্য জানুয়ারি পর্যন্ত গড়াতে পারে। তবে লক্ষ্য যথাসময়েই শেষ করার ব্যাপারে তিনি আশাবাদী।
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, “একটি দুইটি স্প্যান বসার ৭/৮ দিন পর আরও ৩৯টি স্প্যান বসতে পারবে। কাজেই যথাসময়ে কাজ শেষ হবার বিষয়ে আমরা আশাবাদী।”
২০১৮ সালের নভেম্বরের মধ্যে মূল সেতুর কাজ শেষ করার লক্ষ্য রয়েছে।
দুপুরে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার নবনির্মিত মোস্তফাগঞ্জ সেতুসহ পাঁচটি সেতুর উদ্বোধন ঘোষণা করেন কাদের।
এর আগে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে শ্রীনগর উপজেলার ছনবাড়ী চৌরাস্তার ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের পাশে শ্রীনগর সড়ক ও জনপথ পরিদর্শন বাংলোর ভিত্তিপ্রস্তরের ফলক উন্মোচন করেন।
মুন্সীগঞ্জ সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর প্রায় ছয় মাসে এই পাঁচটি সেতুর কাজ সম্পন্ন করে। এর আগে এই পাঁচটি ছিল বেইলি ব্রিজ।
সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মামনুর রশীদ জানান, এই পাঁচটি সেতুর প্রত্যেকটি ১৮-২০ মিটার লম্বা ও সোয়া ১০ মিটার চওড়া। প্রত্যেকটি সেতু নির্মাণে ব্যয় হয় ৫-৬ কোটি টাকা।

তিনি জানান, চলতি বছরের ১৭ জুন সেতুমন্ত্রী মুন্সীগঞ্জের ৩০টি সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পর কাজ শুরু হয়। এর মধ্যে ৫টি সেতুর কাজ শেষ হয়েছে এবং বাকি ২৫টি সেতুর কাজ চলমান আছে। আরও ২০টি সেতুর অনুমোদনের প্রক্রিয়া চলছে।
মুন্সীগঞ্জে আওয়অমী লীগ সরকারের আগে কোনো সরকার সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয়নি উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, এই দেশে পঁচাত্তরের পর ২০০৮ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বিভিন্ন সরকার এখানে ক্ষমতায় ছিল।
“এখানে আওয়ামী লীগ প্রথম এমপি পায় ২০০৮ সালে, তার আগে ২১ বছর আমাদের কোনো এমপি এখানে ছিল না।”
যারা ক্ষমতায় ছিল এই ৭৬টি ব্রিজের একটি বেইলি ব্রিজও তারা সেতু করেনি এবং কোনো প্রকল্প হাতে নেয়নি বলে দাবি করেন কাদের।
“আমরা শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর এ পর্যন্ত ৭৬টি ব্রিজের মধ্যে পাঁচটি উদ্বোধন করেছি, যার কাজ সমাপ্ত। গত মে মাসে আমি ২১টি বেইলি ব্রিজকে পরিপূর্ণ ব্রিজে রূপান্তর করার জন্য নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছিলাম। আজ পাঁচটি শেষ হয়েছে এবং জুন মাসের মধ্যে ২১টির নির্মাণ শেষ করব।”
এই সরকারের মেয়াদকালেই অধিকাংশ ব্রিজের কাজ সমাপ্ত করার এবং ২০২০ সালের জুনের পর আর কোনো বেইলি ব্রিজ থাকবে না বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

শেয়ার