নওয়াপাড়া পৌরসভার বাইপাস সড়কের ফুটপাত দখলের প্রতিযোগিতা!

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি ॥ নওয়াপাড়া পৌরসভার একমাত্র সুদীর্ঘ বাইপাস সড়কের ফুটপাতটি ধীরে ধীরে দখলদারদের কবলে চলে যাচ্ছে। ফুটপাত দখলের যেন প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে গেছে। সুদীর্ঘ ফুটপাত দখলের ফলে জনচলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হওয়ায় সড়কে যানজটের পাশাপাশি ছোট বড় দুর্ঘটনাও ঘটছে। এ ব্যাপারে পৌর মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সচেতন পৌরবাসী।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বাইপাস সড়কটি পৌর এলাকার রাজঘাট জাফরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন রেল ক্রসিং থেকে শুরু হয়ে শেষ হয়েছে নওয়াপাড়া বেঙ্গল টেক্সাটাইল মিল সংলগ্ন রেল ক্রসিংয়ে। বাংলাদেশ রেলওয়ের কোল ঘেষে সম্পূর্ণ পিঁচ ও লোড গ্রহণে সক্ষম এই সড়কি এখন নওয়াপাড়ার আভন্তরীণ ব্যস্ততম সড়কে পরিণত হয়েছে। হাজার হাজার মানুষের চলাচল এ পথে। সাথে রয়েছে ট্রাক, থ্রী হুইলার, ইজিবাইক, নছিমন, করিমন, মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকারসহ বিভিন্ন যানবাহনের চলাচল। নওয়াপাড়া পৌরসভার উদ্যোগে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ সড়কের পার্শ্বে সংযুক্ত করা হয়েছে পানি নিষ্কাশনের জন্য উন্নত ড্রেনেজ ব্যবস্থা। নওয়াপাড়া কলেজ রোড থেকে বাইপাস সড়কের শেষ প্রান্ত বেঙ্গল টেক্সটাইল রেল ক্রসিং পর্যন্ত সুদীর্ঘ ড্রেনেজ ব্যবস্থা রয়েছে। পৌর মেয়রের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সুদীর্ঘ ড্রেনের উপর দিয়ে ডিজাইন সমৃদ্ধ একটি ফুটপাত নির্মাণ কাজ ইতিপূর্বে শেষ হয়েছে। যে ফুটপাত পৌরবাসিকে দুর্ঘটনা এড়িয়ে নির্ভয়ে চলাচল করতে সহযোগিতা করে আসছিল। অথচ একটি কুচক্রি মহল এবং স্থানীয় বাস্তহারাবাসী ধীরে ধীরে জনচলাচলের ফুটপাতটিও দখল করতে শুরু করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাস্তহারাবাসী জানান, তাদের ঘরের সামনের ফুটপাত এক চায়ের দোকানীকে ভাড়া দিয়েছেন। তিনি জানান, স্বাধীনতা চত্বর ও মডেল স্কুলের সামনে কয়েকটি দোকান ঘর দেখে তিনিও এমনটি করেছেন। নওয়াপাড়া মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বর্ণমালা ই স্কুলসহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শ্রমিক, ব্যবসায়ীসহ এলাকাবাসীর অভিযোগ, বাইপাস সড়কটি যানজট ও দুর্ঘটনামুক্ত রাখতে পৌরসভা কোটি কোটি টাকা খরচ করে পৌরবাসীর জন্য ফুটপাত নির্মাণ করে দিয়েছে। অথচ চলাচলে উন্মুক্ত করার কিছুদিন পর থেকে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়েছে। শুরু হয় দখল প্রতিযোগিতা। ফুটপাতের উপর কাঠ, বালু ও ইটের স্তুপ, চায়ের দোকান, ছোট অস্থায়ী কাঠের ঘর, হোটেল, রিক্সা-ভ্যান স্ট্যান্ডের সাথে গ্যারেজ নির্মাণসহ কিছু স্থায়ী দোকানদার তার সামনের ফুটপাতে বড় টিনের চাল লাগিয়ে বসবার স্থান তৈরি করে দখল করেছেন। বর্তমানে ফুটপাত দখলদারদের কবলে চলে যাওয়ায় ব্যস্ততম বাইপাস সড়কের মধ্যদিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে স্কুলগামী শিক্ষার্থী ও জনগণকে। ৭ম শ্রেণির শামীম জানায়, ফুটপাতে হাটতে না পেরে সড়কের মধ্যদিয়ে স্কুলে যাওয়ার সময় তার সহপাঠী দুই বন্ধু গত সপ্তাহে ইজিবাইকের ধাক্কা খেয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল। ফুটপাত দখলমুক্ত করে জনচলাচলের উপযোগি করার বিষয়ে নওয়াপাড়া পৌরসভার মেয়র সুশান্ত কুমার দাস শান্ত বলেন, পৌরবাসীর সেবা দিতে পৌরসভা। পৌরবাসীর কথা চিন্তা করে ফুটপাত নির্মাণ করা হয়েছে। যারাই ফুটপাত দখল করে থাকুক না কেন তাদেরকে দ্রুত সময়ের মধ্যে স্ব স্ব উদ্যোগে ফুটপাত দখলমুক্ত করতে আহবান জানান তিনি। অন্যথায় ওইসব দখলকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের হুশিয়ারী প্রদান করেন তিনি।

শেয়ার