বৃহস্পতিবার থেকে যশোরে ৩ দিনের আঞ্চলিক বিশ্ব ইস্তেমা
মুসল্লিদের সুবিধার জন্য মাঠ ১০টি ভাগে বিভক্ত

এস হাসমী সাজু
যশোরে শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী আঞ্চলিক বিশ্ব ইস্তেমা। উপশহর ক্রীড়া উদ্যানকে ইস্তেমার মূল মাঠ করে শেষ হয়েছে সকল প্রস্তুতি। এতে বিদেশিরা সহ যশোরের আট উপজেলার মুসল্লিরা অংশ নেবেন। বৃহস্পতিবার শুরু হয়ে এই ইস্তেমা আগামী ৩০ ডিসেম্বর সকাল ১০ টায় আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হবে। এর আগে যশোরে ২০১৫ সালে একই স্থানে আঞ্চলিক বিশ্ব ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছিল।
ইস্তেমার আয়োজকদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, উপশহর ক্রীড়া উদ্যানকে ইস্তেমার মূল মাঠ করে আরও ৩টি মাঠকে ইস্তেমার জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। বিদেশিসহ যশোরের আট উপজেলার মুসল্লিরা এই মাঠগুলোতে অবস্থান করবেন। অন্য মাঠগুলোর মধ্যে রয়েছে উপশহর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠ, বাদশাহ ফয়সাল স্কুল মাঠ ও উপশহর ডিগ্রী কলেজ মাঠ। মূল মাঠের নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র থেকে সব কিছুর নিয়ন্ত্রণ করা হবে। ইস্তেমায় অন্য জেলা থেকে আগত মুসল্লিদের জন্য উপশহর পার্কের মাঠ নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে সেখানে স্থান সংকুলন না হলে অন্যান্য মাঠগুলোর সাথে সমন্বয় করা হবে। আগত মুসল্লিদের যানবাহনের জন্য উপশহর বিরামপুর স্কুল মাঠ নির্ধারণ করা হয়েছে।
মূল মাঠে বিদেশি মেহমানরা থাকবেন উত্তর-দক্ষিণ অংশে। মূল মাঠের ১ নম্বর তাবুস্থানে (খিত্তা) অবস্থান করবেন বাঘারপাড়া উপজেলার মুসল্লিরা। একই মাঠের ২ নম্বর তাবুস্থানে সদরের লেবুতলা, চুড়ামনকাটি, নোয়াপাড়া, হৈবতপুর ও কাশিমপুরের মুসল্লিরা, ৩ নম্বরে রাখা হবে ফতেপুর, কচুয়া, ইছালী ও বসুন্দিয়া থেকে আগতদের, ৪ নম্বরে দেয়াড়া, আরবপুর, চাঁচড়া, রামনগর ও নরেন্দ্রপুরের মুসল্লিরা অবস্থান করবেন। উপশহর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ৫নম্বর তাবুস্থানে (খিত্তা) কেশবপুর উপজেলা, ৬নম্বরে অভয়নগরের মুসল্লিরা অবস্থান নেবেন। বাদশাহ ফয়সাল স্কুল মাঠে ৭নং খিত্তায় মণিরামপুর, ৮নম্বরে ঝিকরগাছার মুসল্লিরা থাকবেন। উপশহর ডিগ্রি কলেজ মাঠে ৯নম্বর খিত্তায় থাকবেন চৌগাছা এবং ১০ নম্বরে থাকবেন শার্শার মুসল্লি।
ইস্তমার কয়েকজন মুরব্বি জানান, প্রতিবছর তাবলিগ জামাতের উদ্যোগে এই ইজতেমার আয়োজন করা হয়। তবে আঞ্চলিক ইস্তেমার কেন্দ্রীয় মার্কাসের সিদ্ধান্তে করা হয়। এতে বিদেশিরাসহ জেলা ও জেলার বাইরে থেকে তাবলিগের সাথীরা অংশ নেন। শীর্ষ আলেমরা এতে বক্তব্য রাখেন।
ইস্তেমা উপলক্ষে এলাকায় ২৭ ডিসেম্বর থেকে বি-ব্লক বাজারের প্রধান সড়ক ইউনিয়ন পরিষদের প্রধান সড়ক (বিরামপুর হতে ট্রাক স্ট্যান্ড মোড়) পর্যন্ত যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার অনুরোধ জানিয়েছেন আয়োজকরা। একই সাথে তারা পবিত্রতা রক্ষা ও মুসল্লিদেরকে সহযোগিতা করার আহবান জানানো হয়েছে।

শেয়ার