পাইকগাছায় প্রাথমিকের শতভাগ বই পৌছালেও মাধ্যমিকের ৬৫ হাজার বই এখনো আসেনি

আব্দুল আজিজ, পাইকগাছা॥ বই উৎসবের ৫ দিন বাকী থাকলেও পাইকগাছায় এখনো শতভাগ বই পৌঁছায়নি। ২০১৮ সালে মাধ্যমিক ও প্রাথমিকের ২৩৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯১০টি নতুন বইয়ের চাহিদা রয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী ইতোমধ্যে ৩ লাখ ২৯ হাজার ৪১০টি বই এসেছে। এখনো বাকী রয়েছে প্রায় ৬৫ হাজার বই। ১৬৬টি প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাহিদা রয়েছে ১ লাখ ২২ হাজার ৬১০, যার মধ্যে শতভাগ বই পৌছায়ছে বলে দাবি করেছেন প্রাথমিক শিক্ষা দপ্তর কর্তৃপক্ষ। অনুরূপভাবে ৫৮টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাহিদা ২ লাখ ৭১ হাজার ৩শ। বই পৌচেছে ২ লাখ ৬ হাজার ৮শ। এখনো প্রায় ৬৫ হাজার বই পৌঁছাতে বাকী রয়েছে বলে জানাগেছে। তবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শতভাগ বই পৌঁছে যাবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্ট মাধ্যমিক শিক্ষা দপ্তর কর্তৃপক্ষ।
সূত্রমতে, উপজেলায় ১৬৬টি প্রাথমিক পর্যায়ের স্কুল প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে ২০১৮ সালের নতুন বইয়ের চাহিদা রয়েছে ১ লাখ ২২ হাজার ৬১০টি। যার মধ্যে প্রথম শ্রেণির ৫ হাজার ৯শ, দ্বিতীয় শ্রেণির ৫ হাজার ৫শ, তৃতীয় শ্রেণির ৫ হাজার ২শ, চতুর্থ শ্রেণির ৫ হাজার ও পঞ্চম শ্রেণির ৪ হাজার ৫৫০টি। চাহিদার শতভাগ বই ইতোমধ্যে এলাকায় পৌচেছে বলে দাবি করেছেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার গাজী সাইফুল ইসলাম। তিনি বলেন, বর্তমানে প্রতিষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানে বই সরবরাহ করা হচ্ছে এবং বই উৎসবের প্রস্তুতিও চলছে জোরেসোরে। আগামী ১ জানুয়ারি বই উৎসবে স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হবে বলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশুতোষ কুমার মন্ডল বলেন, আমরা জানতে পেরেছি শতভাগ বই ইতোমধ্যে এসে গেছে। আজ কালের মধ্যে চাহিদার সকল বই আমাদের হাতে এসে পৌঁছাতে পারে। এদিকে উপজেলায় ৫৮টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে, এসব প্রতিষ্ঠানে নতুন বছরে বইয়ের চাহিদা রয়েছে ২ লাখ ৭১ হাজার ৩শ টি। যার মধ্যে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ৭০ হাজার, ৭ম শ্রেণির ৬৮ হাজার ৬শ, ৮ম শ্রেণির ৬৩ হাজার ও ৯ম শ্রেণির ৬৯ হাজার ৭শ। চাহিদা অনুযায়ী ইতোমধ্যে ২ লাখ ৬ হাজার ৮শ বই পৌছালেও এখনো বাকী রয়েছে ৬৪ হাজার ৫শ বই। যার মধ্যে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ৪০ হাজার ও ৯ম শ্রেণির ২৪ হাজার ৫শ বই বাকী রয়েছে। তবে বই উৎসবের এখনো যে কয়দিন বাকী রয়েছে তার মধ্যে চাহিদার শতভাগ বই পৌছে যাবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জয়নাল আবদীন। উপজেলা মাধ্যমিক এ শিক্ষা কর্মকর্তা জানান, আশা করছি ১ জানুয়ারি বই উৎসবে সকল শিক্ষার্থীদের মাঝে চাহিদার সকল বই বিতরণ করা সম্ভব হবে।

শেয়ার