মহেশপুরে সন্ত্রাসীপুত্র বিরুদ্ধে মামলা করে জীবন ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বাবা-মা

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি ॥ ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের রব্বেল হোসেন চৌধুরী (৬২) তার নেশাগ্রস্থ ছেলে লিটন চৌধুরীর নামে হত্যার চেষ্টাসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা করে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বৃদ্ধ বয়সে ছেলের ভয়ে তিনি ও তার স্ত্রী লিলিহার বেগমও (৫৩) বাড়ি ছাড়া। এই সুযোগে মাদকাসক্ত ছেলে মাঠের জমি ও গাছ পালা বিক্রি করে নেশার পিছনে উড়াচ্ছে।
মামলা সুত্রে জানাগেছে, ২০১৪ সালের মে মাসে নেশার টাকা না দেয়ায় নেশাগ্রস্থ ছেলে লিটন চৌধুরী তার বাবা রব্বেল হোসেন চৌধুরীকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতরভাবে আহত করে। প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ যশ্যা হাসপাতালে ভর্তি করেন। এরপর থেকেই লিটন চৌধুরী আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। লিটন চৌধুরীর মা লিলিহার বেগম জানান, আমার ছেলে শুধু নেশাগ্রস্থ না, সে সন্ত্রাসী। নেশার টাকা না দেয়ার কারণে আমার ৬৯ শতক জমি জোর করে বিক্রি করে নিয়েছে। জমি বিক্রির টাকা চাইতে গেলেই আমার ছেলে আমাকে দা দিয়ে হত্যা করতে আসে। সেকারণে আমি নিজে বাদি হয়ে থানায় একটি মামলাও করেছি। তিনি আরও জানান, মামলা করার পর থেকে এখন আমরা জীবন বাঁচাতে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। লিটন চৌধুরীর বাবা রব্বেল হোসেন চৌধুরী জানান, নেশা করার টাকা না দেয়ার কারণে একদিকে আমাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে অন্যদিকে সে একের পর এক আমাদের জমিগুলো বিক্রি করে দিচ্ছে। তিনি আরও জানান, তার ছেলে লিটন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ঝিনাইদহ আদালতে দু’টি হত্যাসহ কয়েকটি মামলা রয়েছে। মামলাগুলো আদালতে চলমান রয়েছে। তিনি ও তার স্ত্রী লিলিহার বেগম এখন জীবন বাঁচাতে কোটচাদপুর এলাকায় একটি ঘর ভাড়া করে জীবন-যাপন করছেন। কারণ এলাকায় গেলে তার সন্ত্রাসী ছেলে লিটন চৌধুরী যে কোন সময় তাদেরকে হত্যা করতে পারে। তিনি সন্ত্রাসী লিটনকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শেয়ার