বেনাপোলে ইমিগ্রেশন পুলিশ ও কাস্টম সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ১০

এমএ রহিম, বেনাপোল॥ পাসপোর্ট যাত্রী আটক ও অনৈতিক লেনদেনের অভিযোগে বেনাপোলে পুলিশ ও কাস্টম সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় কাস্টম সুপারের অফিস ভাংচুর ও বেধড়ক মারধরে ১০জন কাষ্টম সদস্য আহত হন। এদের মধ্যে গুরুতর জখম ৫ জনকে যশোর মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনার প্রতিবাদে কালো ব্যাচ ধারনসহ বৃহস্পতিবার সকালে বন্দর এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে কাস্টমস কর্মকর্তা কর্মচারীরা। এ সময় বন্ধ থাকে আমদানি রফতানি। ২৪ ঘন্টার মধ্যে এমিগ্রেশন পুলিশের ওসিসহ অভিযুক্তদের প্রত্যাহারের জন্য আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে দাবি কার্যকর করা না হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতিসহ বৃহৎ কর্মসূচির ডাক দেয়ার হুশিয়ারী দেন বেনাপোল কাস্টম রাজস্ব কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম। তবে পুরো ঘটনাটি নিয়ে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।
বেনাপোল কাস্টম রাজস্ব কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম ও সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা আব্দুল আল মামুন জানান, বুধবার বিকালে দুই পাসপোর্ট যাত্রীর কাছ থেকে ৮ লাখ টাকার অবৈধ মালামাল ও ডলার রুপি উদ্ধারসহ তাদের আটক করা। এ সময় ওসি ওমর শরীফ একদল পুলিশ নিয়ে এসে তার আতœীয় পরিচয় দিয়ে তাদেরকে ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা কারে। প্রতিবাদ জানালে তাদের উপর হামলাসহ ভাংচুর চালানো হয়। প্রতিবাদে কর্মসূচি পালন করছেন তারা। মামলার প্রস্ততি চলছে বলে জানান কাস্টম কর্মকর্তারা।
এদিকে বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশন ওসি ওমর শরীফ জানান, দুই পাসপোর্ট যাত্রীর কাছে ৫ হাজার টাকা উৎকোচ দাবি করে কাস্টম কর্মকর্তারা। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কাস্টম কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চাইলে তারা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জানানো হয়েছে।

শেয়ার