ঝিকরগাছায় ছুরিকাঘাতে ছাত্রলীগ কর্মী খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ঝিকরগাছায় প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীদের হাতে ছুরিকাঘাতে মিলন হোসেন (২৫) নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী খুন হয়েছে। শনিবার দুপুরে কৃষ্ণনগর পূজা মন্দিরের সামনে থেকে মিলনকে ছুরিকাঘাত করা হয়। সে পৌর সদরের কাটাখাল এলাকার মৃত-আলম হোসেনের ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য মতে, গত শনিবার দুপুরে বোটঘাট রোড দিয়ে মিলনসহ তিনজন মোটসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। এমন সময় কৃষ্ণনগর পূজা মন্দিরের সামনে একটি মোটরসাইকেলে হেলমেট পরিহিত দুই সন্ত্রাসী তাদের গতিরোধ করে। এ সময় তারা মিলনের উপর আক্রমণ করলে মিলনের সাথে থাকা লালন ও শুভ প্রাণভয়ে পালিয়ে যায়। মিলনকে একা পেয়ে সে সময় সন্ত্রাসীরা তাকে উপর্যপুরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা মূমুর্ষ অবস্থায় মিলনকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথেই তার মৃত্যু ঘটে।
মিলনকে কারা হত্যা করলো এমন প্রশ্নের জবাবে প্রত্যক্ষদর্শী তার সাথে থাকা যুবকদ্বয় জানায়, ঝিকরগাছার কৃষ্ণনগর গ্রামের রবিউল সরদারের পুত্র রাজু সরদার ও তার সহযোগী একই গ্রামের নজর আলীর পুত্র বাবু এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনায় দুপুর ৩ টা থেকে দেড় ঘন্টা যশোর-বেনাপোল মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে ক্ষুব্ধ দলীয় নেতাকর্মীরা। এক পর্যায়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মুকুল, সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল ও সাধারণ সম্পাদক মুছা মাহমুদসহ নেতৃবৃন্দ বাজারে এসে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের শান্ত করে অবরোধ তুলে দেন।
থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, মিলনের হত্যাকারীদের অবিলম্বে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। হত্যাকারীদের চিহ্নিত করা গেছে।
এদিকে, গতকাল রোববার বাদ জোহর কাটাখাল ঈদগাহ মাঠে জানাজা শেষে মিলনকে পারবিারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাজা নামাজে স্থানীয় এমপি মনিরুল ইসলাম মনিরসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার