কয়রায় ঋণ খেলাপিকে ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট দেওয়ার চেষ্টা॥ এলাকাবাসির মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া

খুলনাকয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি॥ খুলনার কয়রা উপজেলায় ইসলামী ব্যাংক লিঃ এর এজেন্ট ব্যাংকিং শাখা স্থাপনের জন্য জাহাঙ্গীর আলম নামে একজন বিতর্কিত ঋণ খেলাপিকে মনোনীত করায় এলাকাবাসির মধ্যে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে এজেন্ট ব্যাংকের জন্য কয়রা বাজারে ঘর ভাড়াসহ জনবল নিয়োগের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে কয়রার ব্যবসায়ীরা চেয়ারম্যান ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিঃ ঢাকা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
বিতর্কিত ওই ব্যক্তির প্রচার প্রচারণায় স্থানীয় মানুষের মনে ইসলামী ব্যাংকের কার্যক্রম সম্পর্কে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, জাহাঙ্গীর আলম সাতক্ষীরা জেলার বাসিন্দা। তিনি এর আগে আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট নিয়েছেন। তার কার্যক্রম বর্তমানে বন্ধ হওয়ার পথে। গ্রাহকদের সঙ্গে অসদাচারণ ও সার্বক্ষনিক সেবা না পাওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কয়েক বছর আগে জাহাঙ্গীর আলম ইসলামী ব্যাংকের সাতক্ষীরা শাখা থেকে ১০ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছেন। যে টাকা তিনি পরিশোধ করেননি। এর আগে তিনি একটি বীমা কোম্পানির এজেন্ট হিসেবে কয়রা উপজেলায় কর্মরত ছিলেন। সে সময় গ্রাহকদের টাকা নিয়ে নয়-ছয় করার অভিযোগ রয়েছে। যে কারনে এলাকাবাসির কাছে তিনি একজন বিতর্কিত ব্যক্তি। খোঁজ নিয়ে আরও জানা যায়, তিনি কয়রায় ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রম দেখাশুনার জন্য চার ব্যক্তিকে নিয়োগ দিয়েছেন। তারাও স্থানীয় মানুষের কাছে ব্যাপকভাবে বিতর্কিত। কয়রা বাজারের ইটবালু ব্যবসায়ী হারুন-অর-রশিদ বলেন, ইসলামী ব্যাংকের সেবা কার্যক্রম গ্রাহকের কাছে সন্তোষজনক। তবে বিতর্কিত কোন লোককে এজেন্ট ব্যাংকিং পরিচালনার দায়িত্ব দিলে ব্যাংকের সুনাম ক্ষুন্ন হতে পারে। কয়রা উপজেলা মৎস ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিঃ এর সভাপতি স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ লুৎফর রহমান বলেন, কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানে বিতর্কিত লোককে বসানো ঠিক নয়। এতে করে প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট হওয়ার আশংকা থাকে।
এদিকে স্থানীয় ব্যবসায়ি নেতাদের দাবী ইসলামী ব্যাংকের মত একটি প্রতিষ্ঠানের এজেন্ট ব্যাংকিং পরিচালনার জন্য সৎ, নিষ্ঠাবান ও মর্যাদা সম্পন্ন ব্যক্তিকে নিয়োগ দেওয়া প্রয়োজন। তারা এ ব্যাপারে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা বোর্ডের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

শেয়ার