কেশবপুরে আ’লীগের সংবাদ সম্মেলন উপজেলা চেয়ারম্যান ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান বর্জন

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি॥ কেশবপুরে বিজয় দিবসের প্যারেড গ্রাউডে উপজেলা চেয়ারম্যানকে পতাকা উত্তেলন ও সালাম গ্রহণ করতে না দেওয়ায় তিনি অনুষ্ঠান বর্জন করে চলে যান। এ ছাড়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আসন বিন্যাসে দাবি পূরণ না হওয়ায় লাল মুক্তিবার্তাভুক্ত মুক্তিযোদ্ধারা অনুষ্ঠান বর্জন করেন। উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতি নিয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে।
শনিবার দুপুরে উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন। এ সময় বিভিন্ন পরিস্থিতির বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেন উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মোহাম্মদ আলী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে, মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী প্যারেড গ্রাউন্ডে পতাকা উত্তেলন ও সালাম গ্রহণ করবেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। কিন্তু কেশবপুরে সংসদ সদস্য ও জন প্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, ইউএনও এবং থানার ওসি পতাকা উত্তেলন ও সালাম গ্রহণ করেন। ফলে তিনি অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন। এ ছাড়া বিজয় দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পূর্বের রীতি অনুযায়ী মুক্তিবার্তা ও ভারতীয় তালিকাভুক্ত মুক্তিযোদ্ধাদের বসার ব্যবস্থা করতে ইউএনও অপরাগতা প্রকাশ করায় ওই মুক্তিযোদ্ধারা প্রশাসনের সকল অনুষ্ঠান বর্জন করেছেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয় চত্বরে শনিবার ওই মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনার জন্য নির্মিত ডায়াস শুক্রবার গভীর রাতে ষড়যন্ত্রকারীরা ভাংচুর ও ছাউনির পর্দা ছিড়ে ফেলেছেন বলে ও সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে ওইসব ঘটনার নিন্দা জানানো হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানূর রহমান সাংবাদিকদের জানান, অতীতে পতাকা উত্তোলন ও সালাম গ্রহণ করতেন উপজেলা নির্বাহী অফিসাররা। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যানদের দাবির প্রেক্ষিতে গত বছর থেকে সরকার ইউএনওদের পাশাপাশি উপজেলা চেয়ারম্যানদের পতাকা উত্তোলন ও সালাম গ্রহণের নিয়ম করেছেন। তবে স্থানীয় এমপি অথবা মন্ত্রী ইচ্ছা পোষণ করলে তিনিও পতাকা উত্তোলন ও সালাম গ্রহণ করতে পারবেন। তিনি আরও জানান বিজয় দিবসে গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়েছে। কিন্তু ওই অনুষ্ঠানে একটি গ্রুপ অংশ নেয়নি।

শেয়ার