মণিরামপুরে নারকেল বাগান থেকে ভ্যান চালকের লাশ উদ্ধার, প্রবাসীর স্ত্রী আটক

মোতাহার হোসেন, মণিরামপুর॥ মণিরামপুরের মজগুন্নী গ্রামের নারকেল বাগান থেকে আশরাফুল হোসেন (৪০) নামে এক ভ্যান চালকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আশরাফুল উপজেলার মুজগুনী গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে। নিহতের পরিবারের দাবী পরকীয়ার জের ধরে আশরাফুলকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার মুজগুন্নি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে একই গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক নামের এক প্রবাসীর স্ত্রী খালেদা বেগম (৪০)কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে।
নিহত আশরাফুলের বড় ভাই নজরুল ইসলামের অভিযোগ, তার ছোট ভাইয়ের সাথে একই গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী খালেদার প্রেমজ সম্পর্ক চলছিল। ঘটনার সময় রাত ১১টার দিকে খালেদা তার (নজরুল) ছেলের কাছে মোবাইল করে জানায় আশরাফুল তার (খালেদা) বাড়িতে গড়ায় দড়ি দিয়ে মারা গেছে। এরপর ওই রাতেই খালেদার বাড়ি থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে আশরাফ ফকিরের বাগানে আশরাফুলের মরদেহ পাওয়া যায়। খালেদাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই হত্যার রহস্য উন্মোচিত হবে বলে তিনি দাবী করেন।
এদিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা খালেদার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাত সাড়ে ৯ টার দিকে তার বাড়ির পিছনে ছবেদা গাছে আশরাফুলকে গলাই দড়ি দিয়ে ঝুলে থাকতে দেখে তার কাছে যান।
ঐ সময় আশরাফুল জীবিত ছিল দাবী করে জানান, তাকে (আশরাফুল) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য বের হলে পথিমধ্যে ওই স্থানে আশরাফুলের মৃত্যু ঘটে। খবর পেয়ে পরদিন সকালে ওই বাগান থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। জানতে চাইলে মণিরামপুর থানার এসআই তাপস কুমার রায় বলেন, এটা খুন না আত্মহত্যা তা বোঝা যাচ্ছে না। লাশ ময়না তদন্তের জন্যে মর্গে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এছাড়া খালেদা নামের এক নারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে থানায় আনা হয়েছে বলেও তিনি জানান। এদিকে মণিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোকাররম হোসেন জানান, লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ৩০৬ ধারায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শেয়ার