নিউ ইয়র্কে বাস টার্মিনালে ‘হামলাকারী’ বাংলাদেশি

সমাজের কথা ডেস্ক॥ নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনে সকালের ব্যস্ত সময়ে বাস টার্মিনালের বিস্ফোরণের ঘটনায় যিনি আটক হয়েছেন, ওই ব্যক্তি বাংলাদেশি বলে পুলিশ জানিয়েছে।
সোমবার স্থানীয় সময় সকালে অফিসযাত্রার সময় পোর্ট অথরিটি বাস টার্মিনালে বিস্ফোরণের পর এক ব্যক্তিকে আহতাবস্থায় গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছিল নিউ ইয়র্ক পুলিশ।

পরে নিউ ইয়র্ক পুলিশ কমিশনার জেমস ও নিল সাংবাদিকদের জানান, ২৭ বছর বয়সী ওই যুবকের নাম আকায়েদ উল্লাহ।

পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে নিউ ইয়র্ক পোস্ট জানিয়েছে, ওই যুবক ব্রুকলিনে থাকেন এবং তিনি বাংলাদেশ থেকে সাত বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছিলেন।

এই বিস্ফোরণে আকায়েদ ছাড়া আর চারজন আহত হয়েছেন বলে নিউ ইয়র্ক ফায়ার ডিপার্টমেন্ট জানিয়েছে। তবে তাদের কারও অবস্থাই গুরুতর নয়।

হামলাকারী আইএস দ্বারা অনুপ্রাণিত বলে মনে করছেন নিউ ইয়র্ক পুলিশের সাবেক কমিশনার বিল ব্রাটন।

তিনি এনবিসি নিউজকে বলেন, “গত সাত বছর ধরে সে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছে এবং খুব সম্ভবত আইএসের নামে এ বিস্ফোরণে ঘটিয়েছে। তাই, অবশ্যই এটা সন্ত্রাসী হামলা এবং অবশ্যই পরিকল্পিত।”

নিউ ইয়র্কের পুলিশ কমিশনার জেমস ও নিলও মনে করছেন, এটি সন্ত্রাসী হামলার মতো ঘটনা।

গ্রেপ্তার ব্যক্তির আইএসের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল কি না- জানতে চাইলে তিনি এখনই এই বিষয়ে কিছু বলতে চাননি।

নিউ ইয়র্কের মেয়র বিল ডে ব্লাসিও বলেছেন, “একটি সন্ত্রাসী হামলার চেষ্টা হয়েছিল। ভাগ্য ভাল যে সন্দেহভাজন ব্যক্তিটি সফল হতে পারেনি।”

পোর্ট অথরিটি বাস টার্মিনাল যুক্তরাষ্ট্রের ব্যস্ততম একটি টার্মিনাল; সকালে অফিসগামী মানুষের ভিড়ের মধ্যে এই বিস্ফোরণ ঘটে।

টার্মিনাল কর্তৃপক্ষের সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ভিডিওতে দেখা যায়, পাতাল স্টেশন থেকে যখন মানুষ প্যাসেজ ধরে উঠে আসছিল, তখন বিস্ফোরণ ঘটে। ধোঁয়ার মধ্যে এক ব্যক্তিকে পড়ে থাকতে দেখা যায়।
গণমাধ্যমে আসা আরেকটি ছবিতে দেখা যায়, মুখে দাড়িওয়ালা এক ব্যক্তি পড়ে আছেন, তার পেটে আড়াআড়ি লম্বা ক্ষতচিহ্ন। তার প্যান্ট মোটামুটি অক্ষত থাকলেও ক্ষতচিহ্নের উপরে শার্ট ও গেঞ্জি পুড়ে গেছে।
পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, পড়ে থাকা ওই ব্যক্তিই আকায়েদ, যাকে তারা গ্রেপ্তার করেছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে নিউ ইয়র্ক পোস্ট জানায়, তার কোমরের দিকে পাঁচ ইঞ্চি ধাতব পাইপ এবং ব্যাটারি প্যাঁচানো থাকতে দেখা যায়। তার শরীরেও তার জড়ানো ছিল।
“ওই ব্যক্তি জ্যাকেটের নিচে শরীরের ডানদিকে বোমাটি বহন করছিল।”

শেয়ার