রোকেয়া পদক পেলেন বেবী মওদুদসহ পাঁচ নারী

সমাজের কথা ডেস্ক॥ নারী উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য এ বছর মরণোত্তর রোকেয়া পদক পেয়েছেন লেখক-সাংবাদিক এ এন মাহফুজা খাতুন (বেবী মওদুদ)।
এছাড়া চিত্রশিল্পী সুরাইয়া রহমান, লেখক শোভা রানী ত্রিপুরা, সংগঠক মাজেদা শওকত আলী, সমাজকর্মী মাসুদা ফারুক রতœাও এবছর রোকেয়া পদক পেয়েছেন।
শনিবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে এই বছরের ‘রোকেয়া পদক’ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বেবী মওদুদের পক্ষে পদক নেন তার বড় ছেলে রবিউল হাসান অভি।
২০১৪ সালে ৬৬ বছর বয়সে মারা যান বেবী মওদুদ। সংসদে সংরক্ষিত আসনের সদস্য বেবী মওদুদ সাংবাদিকতার পাশাপাশি লেখালেখিতে সক্রিয় ছিলেন, বিশেষ করে শিশুদের জন্য লিখতেন তিনি।
বেবী মওদুদের জন্ম ১৯৪৮ সালের ২৩ জুন, কলকাতায়। তার বাবা আবদুল মওদুদ ছিলেন একজন বিচারক। মায়ের নাম হেদায়েতুন নেসা।
১৯৬৭ সালে সাংবাদিকতায় যুক্ত হওয়ার পর বেবী মওদুদ দৈনিক সংবাদ, বিবিসি, দৈনিক ইত্তেফাক, বাসস ও সাপ্তাহিক বিচিত্রায় দীর্ঘদিন কাজ করে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে যোগ দেন।
মুক্তিযুদ্ধের আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী থাকার দিনগুলোতেই পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের সদস্য হিসেবে ছাত্র রাজনীতিতে যুক্ত হন বেবী মওদুদ।
১৯৭১ সালে বাংলায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি পাওয়ার আগে ১৯৬৭-৬৮ সময়ে রোকেয়া হল ছাত্রী সংসদের সদস্য হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
নব্বইয়ের দশকে যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তির দাবিতে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আন্দোলনেও সক্রিয় ছিলেন বেবী মওদুদ।
নবম জাতীয় সংসদে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে সংরক্ষিত নারী আসন থেকে সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হন। সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি এবং লাইব্রেরি কমিটির সদস্য হিসাবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেন।

শেয়ার