যশোরে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি উদ্বোধন
হয় মরতে হবে আর না হলে সংগ্রাম করে বাঁচতে হবে: তরিকুল ইসলাম

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে বিএনপির ‘প্রাথমিক সদস্য নবায়ন ও নতুন সদস্য সংগ্রহ’ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল প্রেসক্লাব মিলনায়তনে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী তরিকুল ইসলাম এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী।
অনুষ্ঠানে তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমানে দেশে এক দুর্বিষহ পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এমন পরিস্থিতিতে আমাদের সামনে দুইটি পথ খোলা আছে। হয় মরতে হবে আর না হলে সংগ্রাম করে বাঁচতে হবে। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সেই বাঁচার সংগ্রামের অংশ হিসেবে সদস্য সংগ্রহের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। আমাদের এই মুহূর্তের কাজ হচ্ছে চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ঘোষিত এই কর্মসূচি সফল করা।’
অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে দলটির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী বলেন, ‘বর্তমান সরকার জনগণকে ত্যাজ্য করে পুলিশ নির্ভর হয়ে টিকে আছে। এখন দেশে এমন এক দুঃশাসন চলছে-যেখানে কথা বলা যাবে না, সমাবেশ করা যাবে না। কিন্তু এভাবে দেশ চলতে পারে না। সত্তরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হলেও তাদের ক্ষমতা দেওয়া হয়নি। এটা ছিল গণতন্ত্রের বিপরীত চিত্র। এজন্য একাত্তরে রক্তাক্ত সংগ্রামের মধ্য দিয়ে এদেশ স্বাধীন হয়। কিন্তু এদেশে বার বার সেই অগণতান্ত্রিক শক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। তার প্রতিবাদও হয়েছে। বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।’
আগামী নির্বাচন নিয়ে রুহুল কবীর রিজভী বলেন, ‘বিএনপি আগামী নির্বাচনে যাবে। তবে অবশ্যই শেখ হাসিনার অধীনে নয়। আন্দোলনের মধ্যমে নির্বাচনকালীন সরকারের দাবি আদায় করে বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে।’
যশোর জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল হুদার সভাপতিত্বে এসময় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, জয়ন্ত কুমার কুণ্ডু, সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অমলেন্দু দাস অপু, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন। আলোচনা শেষে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান থেকে জানানো হয়, যশোর জেলা বিএনপি এবার দেড় লক্ষাধিক নতুন সদস্য সংগ্রহের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামছে।