ঝিকরগাছায় আদম ব্যাপারীর খপ্পরে পড়ে পথে বসেছে ১০টি পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ঝিকরগাছার চিহ্নিত প্রতারক আদম ব্যাপারী আসাদের খপ্পরে পড়ে ১০টি পরিবার পথে বসেছে। প্রতারিতদের মধ্যে উপজেলার বেনেয়ালী গ্রামের মৃত: আব্দুল জলিলের ছেলে হাশেম আলী বাদি হয়ে যশোরের জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাও করেছেন। সিআর মামলা নং-৬৬/১৫, এনআইঅ্যাক্ট এর ১৩৮ ধারা। তবে মামলার দীর্ঘ সুত্রিতার কারনে বাদিসহ প্রতারণার শিকার পরিবারগুলো চরম হতাশ হয়ে পড়েছেন। মামলার আসামি আসাদ হোসেন ঝিকরগাছা উপজেলার ফতেপুর গ্রামের আতিয়ার রহমানের ছেলে।
বাদি অভিযোগে জানা গেছে, তাকে বিদেশে পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে নগদ ৩ লাখ টাকা নেয় আসাদ। কিন্তু টালবাহানার এক পর্যায়ে টাকা ফেরত চাইলে আসামি (আদম ব্যাপারী) আসাদ ডাচবাংলা ব্যাংক লিঃ যশোর শাখার ৩ লাখ টাকার একটি চেক প্রদান করে। যার হিসাব নং-১১৪১১০১৬৯৪৫, সিডি/এ ০৩১১৬১০, তাং ৩০/০১/২০১৫ ইং। কিন্তু উল্লেখিত একাউন্টে পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ চেকটি ডিসঅনার করেন। এদিকে যশোরের আর্ন্তজাতিক মানবাধিকার সংস্থা আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক) ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক কর্তৃক একটি তদন্ত প্রতিবেদনে এতদাসংক্রান্তে উল্লেখ করা হয়েছে প্রতারক আদম ব্যাপারী আসাদ মালয়েশিয়া পাঠানোর নামে একই গ্রামের আজিজুর রহমানের ছেলে জিয়াউর রহমান, আহাদ আলীর ছেলে শাহিন হোসেন, আব্দুল হামিদের ছেলে আরিফ হোসেন, আব্দুল খালেকের ছেলে রুহুল আমীন, বাবর আলীর ছেলে শফিকুল, আব্দুর রহিমের ছেলে হাফিজুর, মৃত-গোপাল মোড়লের ছেলে আব্দুর রউফ, মৃত-ইমান আলীর ছেলে শওকত আলী, মৃত-শানাউল্লাহর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম ও মৃত-কাঙ্গাল চাদের ছেলে শামছুর রহমানের নিকট থেকে প্রায় ২০ লাখ টাকা কৌশলে হাতিয়ে নিয়েছে। আর্থিক প্রতারণার শিকার এসব পরিবারগুলো মানবেতর জীবন-যাপন করছে। এদিকে প্রতারক আদম ব্যাপারী আসাদ তার পরিবার-পরিজন নিয়ে গা ঢাকা দিয়েছে।

শেয়ার