যশোরে ব্যাংকের মধ্যে থেকে ব্যবসায়ীর দেড় লাখ টাকা খোয়ার ঘটনায় নারী আটক

jesনিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে ব্যাংকের মধ্যে থেকে মীর্জা অহেদুজ্জামান রুনু নামে এক ব্যবসায়ীর দেড় লাখ টাকা খোয়া যাওয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সন্দেহজনকভাবে ফারজানা ইসলাম (২৬) নামে এক নারীকে আটক করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। আটক নারী ঝিকরগাছা উপজেলার জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের আব্দুল্লাহ আল মামুনের স্ত্রী। গত ১৪ নভেম্বর শহরের ডাচ-বাংলা ব্যাংকের আরএন রোড শাখার মধ্যে থেকে রুনুর দেড় লাখ টাকা খোয়া যায়।
কোতোয়ালি থানায় দায়ের করা মামলা সূত্রে জানা গেছে, রুনু ১৪ নভেম্বর দুপুর ১২টার দিকে তিনি এমকে রোডের বেসিক ব্যাংক থেকে আড়াই লাখ টাকা উঠিয়ে ডাচ-বাংলা ব্যাংকে যান ঢাকায় টাকা পাঠানোর জন্য। তিনি তার ছেলের জন্য এক লাখ টাকা অন লাইনে ঢাকার ওয়ান ব্যাংকে পাঠান। ব্যাগের মধ্যে আরো দেড় লাখ টাকা ছিল। টাকা পাঠানোর পর দেখেন তার ব্যাগটি কাটা এবং ব্যাগের মধ্যে থাকা দেড় লাখ টাকা উধাও। এরপর তিনি বিষয়টি ব্যাংকের ম্যানেজারকে অবহিত করেন। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কোতোয়ালি থানা পুলিশে অভিযোগ করে।
পুলিশ ব্যাংকের মধ্যে থাকা সিসি ক্যামেরায় রেকর্ড করা ভিডিও ফুটেজ দেখেন। সেখানে দেখা গেছে এক নারী রুনুর শরীর ঘেঁষে ছিলেন। পাশে দাঁড়িয়ে এক চশমা পরা লোকের সাথে কথা বলছেন। এরপর টাকা খোয়া গেছে।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই হায়াত মাহমুদ জানিয়েছেন, ব্যাংকের সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ফুটেজ দেখে ফারজানাকে আটক করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ঝিকরগাছার জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়েছে। তার স্বামী আগে বিদেশে ছিলেন। কয়েক বছর হলো তিনি দেশে। এখন কিছু করেন না।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানিয়েছেন, ঘটনার দিন তিনি ডাচ-বাংলা ব্যাংকের মধ্যে গিয়েছিলেন টাকা উঠানোর জন্য। কিন্তু টাকা না উঠিয়ে ঝিকরগাছায় ফিরে যান। তবে এই ঘটনার সাথে তিনি জড়িত না বলে জানিয়েছেন। তাকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।
উল্লেখ্য, ব্যবসায়ী মীর্জা অহেদুজ্জামান রুনু শহরের পূর্ব বারান্দীপাড়া মৃত ডা. এমএ গনির ছেলে এবং যশোরের সাংবাদিক মীর্জা বদরুজ্জামান টুনুর ছোট ভাই।

শেয়ার