মনিরামপুরে ১৯টি প্রকল্পের কাজে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত শুরু

oniom durniti
নিজস্ব প্রতিবেদক, মনিরামপুর॥ মনিরামপুর উপজেলা পরিষদের রাজস্ব তহবিলের ৩৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৯টি প্রকল্পে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে উচ্চ পর্যায় থেকে তদন্ত শুরু হয়েছে। রোববার দায়িত্ব প্রাপ্ত তদন্ত কর্মকর্তা বেশ কয়েকটি প্রকল্প সরেজমিন পরিদর্শন করেন।
জানাযায়, চলতি অর্থ বছরে উপজেলা পরিষদের ১৭ ইউনিয়নের মধ্যে ১৩টি ইউনিয়নে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের জন্য ১৯টি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এজন্য পরিষদের রাজস্ব তহবিলের ৩৮ লাখ টাকা বরাদ্দ করা হয়। প্রকল্পের সভাপতি হিসাবে ৩ জন চেয়ারম্যান, ১১ জন মেম্বর (পুরুষ) ও ৫ জন মহিলা মেম্বরকে মনোনিত করা হয়। আর এ প্রকল্পসমুহ দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন উপজেলা প্রোকৌশলী জহির মেহেদী হাসান। প্রকল্প গুলোর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ইউনিয়নের কাঁচা রাস্তা সলিংকরণ, হুইল চেয়ার ও সেলাই মেশিন বিতরণসহ ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ। জানাগেছে, এই সকল প্রকল্পে স্ব স্ব এলাকা থেকে অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় দূর্গাপুর গ্রামের সাবেক পৌর কাউন্সিলর ও আওয়ামীলীগ নেতা সাকায়াত আলী লিখিতভাবে স্থানীয় সরকার বিভাগ খুলনা বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন। সূত্রমতে,সাকায়াত আলীর অভিযোগ তদন্ত করার জন্য খুলনা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিচালক নিশ্চিন্ত কুমার পোর্দ্দার তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে(৩/৪/২০১৬ তারিখ, ২২৮(৫) নং স্মারক পত্রে নোটিশ দ্বারা) রোববার থেকে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মনিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস কক্ষে তদেেন্তর কার্যক্রম শুরু করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুল হাসান, অভিযোগকারী সাবেক পৌর কাউন্সিলর সাকায়াত হোসেন ও কয়েকটি প্রকল্পের সভাপতি।দিনভর তিনি প্রকল্পের সভাপতিসহ সংশ্লিষ্টদের জিজ্ঞাসাবাদ করে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেন। এই বিষয়ে তার নিকট মনিরামপুর প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি তদন্ত করার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অীতশিঘ্রই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে।

শেয়ার