এবার এডিপি ১ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা

Muhit
সমাজের কথা ডেস্ক॥ উন্নয়ন কর্মসূচিতে আগামী অর্থবছরে ১ লাখ ২০ হাজার কোটি বরাদ্দ দিতে যাচ্ছে সরকার, যা চলতি অর্থবছরের চেয়ে ২৩ হাজার কোটি টাকা বেশি।
বৃহস্পতিবার মতিঝিলে এমসিসিআই প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এই আভাস দিয়ে জানান, আগামী ২ জুন জাতীয় সংসদে নতুন অর্থবছরের বাজেট দিতে যাচ্ছেন তিনি।
অর্থমন্ত্রী বলেন, নতুন বাজেটের আকার ৩ লাখ ৪০ হাজার কোটি টাকা হতে পারে। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) বরাদ্দ খাকবে ১ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা।
দুপুরে মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের প্রাক-বাজেট আলোচনায় একথা বলার পর বিকালে শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে সংসদীয় কমিটির সভাপতিদের সঙ্গে আলোচনায় বাজেটের মোট আকার এবং এডিপি বিষয়ে একই তথ্য দেন মুহিত।
চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজে ঘোষণায় এডিপিতে বরাদ্দ ছিল ৯৭ হাজার কোটি টাকা। তবে গত মঙ্গলবার এনইসি বৈঠকে সভায় তা কাটছাঁট করে ৯১ হাজার কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়েছে।
এডিপি বাড়ার কারণ ব্যাখ্যা করে মুহিত বলেন, “আগামী অর্থবছরে কয়েকটি মেগা প্রকল্পের কাজ শুরু করতে হবে। সে কারণেই এডিপির আকার বাড়বে।”
“এটা বেশ বড় লাফ। কিন্তু আমার মনে হয়, আমাদেরকে এই ঝুঁকি নিতে হবে।”
প্রতিবারের মতো বাজেট ঘোষণার আগে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে আলোচনা করছেন অর্থমন্ত্রী।
এমসিসিআই প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনায় তিনি বলেন, “সবাই যে মতামত দেবেন তার ভিত্তিতেই নতুন বাজেট প্রণয়ন করে ২ জুন সংসদে উপস্থাপন করব।”
চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটের আকার ২ লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা। পরবর্তী বছরে টাকার অঙ্ক বাড়ছে ৪৫ হাজার কোটি টাকা।

২০১৪-১৫ অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ২ লাখ ৫০ হাজার ৫০৬ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে তা ২ লাখ ৩৯ হাজার ৬৬৮ কোটি টাকায় নেমে আসে।
২০১৩-১৪ অর্থবছরে মূল বাজেটের আকার ছিল ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেট দাঁড়ায় ১ লাখ ৮৮ হাজার ২০৮ কোটি টাকা।
বাংলাদেশে অর্থবছর শুরু হয় পহেলা জুলাই। সাধারণত জুন মাসের প্রথম সপ্তাহের বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী জাতীয় সংসদে বাজেট পেশ করেন।
সেই ধারাবাহিকতায় ২ জুন বৃহস্পতিবার ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করবেন। তার ওপর আলোচনার পর ৩০ জুন তা পাস হবে।
আওয়ামী লীগ সরকারের অর্থমন্ত্রী হিসেবে এটি হবে মুহিতের অষ্টম বাজেট। এর আগে এরশাদ সরকারের আমলে অর্থমন্ত্রী হিসেবে ১৯৮২-৮৩ এবং ১৯৮৩-৮৪ অর্থবছরের বাজেট দিয়েছিলেন তিনি। তা ধরে এবার ১০ম বাজেট দিতে যাচ্ছেন মুহিত।
বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১২ বার বাজেট দিয়েছেন প্রয়াত অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান।

শেয়ার