সন্ত্রাস প্রশ্নে নতুন নিয়ম নিয়ে কাজ করছে তুরস্ক

turky
সমাজের কথা ডেস্ক॥ সন্ত্রাসে মদদ দেওয়া ব্যক্তিদের নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নেওয়ার নতুন একটি আইন প্রণয়ন নিয়ে কাজ করছে তুরস্ক। তুরস্কের বিচারমন্ত্রী বাকির বোজদাগ বুধবার একথা জানান।
একদিন আগে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেসেপ তায়েপ এরদোয়ান আইনজীবীদের উদ্দেশ্যে দেওয়া এক বক্তৃতায় এ ধরনের ব্যবস্থা দেখতে চান বলে জানিয়েছিলেন।
যদিও তার ঘণ্টা কয়েক পর প্রধানমন্ত্রী আহমেত দাভুতগলু বলেন, বর্তমানে তাদের এ ধরনের কোনও পরিকল্পনা নেই।
কিন্তু বুধবার টেলিভিশনে সরাসরি প্রচারিত খবরে বোজদাগ সাংবাদিকদের বলেন, “নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নেওয়া সম্পর্কিত নতুন একটি আইনের বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করছেন এরদোয়ান।”
“নিশ্চিতভাবেই আমরা এ বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করব।”
এর আগে এরদোয়ান বলেছিলেন, “তুরস্কের যে সব নাগরিকের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসে মদদ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে- হোক তারা সাংবাদিক বা ত্রাণকর্মী- তারা সন্ত্রাসী ছাড়া আর কিছু নয়।”
সম্প্রতি স্বাধীনতাকামী কুর্দিস ওয়ার্কাস পার্টির (পিকেকে) সঙ্গে তুরস্ক সরকারের সংঘাত চরমে উঠেছে।
মানবাধিকার উপদেষ্টাদের আশঙ্কা, সন্ত্রাস-দমন আইন যার আওতায় এরই মধ্যে বেশ কয়েকজন শিক্ষাবিদ ও বিরোধী মতের সাংবাদিককে আটক করা হয়েছে, সেটা এখন আদালতে ব্যবহার করা হবে। গত বছর জুলাই মাসে সরকারের সঙ্গে দুই বছরের যুদ্ধবিরতি চুক্তি ভেঙে দেয় পিকেকে।
১৯৮৪ সাল থেকে শুরু হওয়া কুর্দি ও তুর্কি সেনাদের সংঘর্ষে ৪০ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ গেছে। নিহতদের অধিকাংশেই কুর্দি সম্প্রদায়ের মানুষ।

তুরস্ক, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নে পিকেকে জঙ্গি সংগঠন হিসেবে বিবেচিত হয়।

শেয়ার