মাউশি’র সার্ভার সমস্যায় এমপিওভুক্তি ॥ অনিশ্চিত, বিপাকে যশোরের শিক্ষকরা

shikkhavobon
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) বিভাগে সার্ভার সমস্যায় বিপাকে পড়েছেন যশোরের শিক্ষকরা। সময়সীমা ফুরিয়ে আসলেও তারা এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করতে পারছেন না। গত ১২দিন ধরে এ সমস্যা চলছে। আর এমপিওভুক্তির সময়সীমা আছে ১০এপ্রিল পর্যন্ত। এ কারণে প্রতিদিনই ভুক্তভোগী শিক্ষকেরা জেলা শিক্ষা অফিসে ধর্ণা দিচ্ছেন। কিন্তু কোনো সুরাহা না হওয়ায় তারা হতাশায় ভুগছেন।
যশোর জেলা শিক্ষা অফিসে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ভুক্তভোগী শিক্ষক জানান, তারা নিয়ম মাফিক নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে শিক্ষকতার পেশায় যোগ দিয়ে এমপিওভুক্তির আশায় দীর্ঘ দিন ধরে অপেক্ষা করছেন। কারো কারো এ অপেক্ষার পালা বছর এমন কি তারও বেশি পার হয়ে গেছে। এখন এমপিওভুক্তির আবেদন করতে গিয়ে তারা পড়েছেন আর এক বিড়ম্বনায়। এমপিও ভুক্তির আবেদন করতে হচ্ছে ইন্টারনেটের মাধ্যমে। কিন্তু সার্ভার সমস্যার কারণে কেউ ওই আবেদন পেশ করতে পারছেন না।
শিক্ষকরা জানান, এই আবেদন করার সময় আগে ১২ টি ডকুমেন্ট সংযুক্ত করতে হতো। পরবর্তীতে ২৭ টি ডকুমেন্ট সংযুক্ত করার নিয়ম করা হয়। এই নিয়মটি করার দু-একদিনের মধ্যে আরো দু’টি ডকুমেন্ট বাড়িয়ে ২৯টি করা হয়েছে। ভুক্তভোগী শিক্ষকরা সব ডকুমেন্ট জোগাড় করে আবেদনপত্রের সাথে সংযুক্ত করে ইন্টারনেটের মাধ্যমে পাঠাতে গেলে এরর হয়ে যাওয়ার কারণে পাঠানো যাচ্ছে না। শিক্ষকরা এ বিয়য় নিয়ে খুলনা ডিডিপিআই অফিসে যোগাযোগ করলে তাদেরকে জানানো হচ্ছে সার্ভারে কাজ হচ্ছে। চেষ্টা করতে থাকুন সব ঠিক হয়ে যাবে। গত ২৫ মার্চ থেকে এ অবস্থা চললেও সার্ভার সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। অথচ আগামী ১০ এপ্রিল হচ্ছে এমপিওভুক্তির আবেদনের শেষ তারিখ। ভুক্তভোগী শিক্ষকরা অনেকেই অভিযোগ করেছেন, অনৈতিক ফায়দা লোটার জন্য এই টেকনিক্যাল সমস্যা ইচ্ছাকৃত সৃষ্টি করা হয়েছে।
এ বিষয়ে খুলনা বিভাগের ডিডিপিআই অফিসে যোগাযোগ করলে বিদ্যালয় পরিদর্শক নিভারাণী পাঠক সাংবাদিকদের জানান, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ১০ এপ্রিল সময় বেধে দিয়েছেন। সময় আর বাড়ানো হবে না। সার্ভার আপলোড করার কারণে টেকনিক্যাল সমস্যা দেখা দিয়েছে। আশা করা যায় ১০ তারিখের মধ্যেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

শেয়ার