পাপনের দ্বারস্থ ‘বাঁচাও ফুটবল’

papon
সমাজের কথা ডেস্ক॥ দেশের ফুটবল অঙ্গনের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ‘বাঁচাও ফুটবল’। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির বিরোধীদের দ্বারা গঠিত এই গ্রুপ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ আবেদন জানায়।
বাফুফে’র নির্বাচনকে সামনে রেখে বুধবার (০৬ এপ্রিল) পাপনের গুলশানের বাসভবনে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় দুই পক্ষের মধ্যে। সেখানেই বিসিবির সভাপতির মারফত প্রধামন্ত্রীর কাছে নিজেদের আকুতি জানায় ‘বাঁচাও ফুটবল’-এর সদস্যরা।
সাবেক জাতীয় ফুটবলার শামসুল আলম মঞ্জু, আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু, আবদুল গাফফার, কায়সার হামিদ, জাকারিয়া পিন্টু, কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ডিরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়া, আবু হাসান চৌধুরী প্রিন্সসহ ফুটবল সংগঠক-খেলোয়াড়রা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠক শেষে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু বলেন, আমরা বিসিবি সভাপতির কাছে বাফুফের চলমান অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা, নানা দুর্নীতি সম্পর্কে একটি চিত্র উপস্থাপন করেছি। বিসিবি সভাপতি বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনের একজন অভিভাবক, তাই তার মাধ্যমে দেশের অভিভাবক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের বার্তা ও বক্তব্য তুলে ধরার আবেদন করেছি। তিনি এ ব্যাপারে আমাদের সহায়তা করার আশ্বাস দিয়েছেন। আমরা চাই বাফুফের একটি স্বচ্ছ ও দেশের ফুটবলকে সঠিকভাবে চালনা করতে একটি যোগ্য কমিটি।
বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি পাপন বলেন, আমি ফুটবলার ও সংগঠকদের কথা শুনেছি, তারা আমাকে একটি দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি আগামী দুই/তিন দিনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলবো।
বাঁচাও ফুটবল-এর প্রসঙ্গে বাফুফের সভাপতি কাজী মো. সালাউদ্দিন বলেছেন, তারা যদি ফুটবল বাঁচানোর সত্যিকারের লোকই হয়ে থাকেন, তাহলে আমার প্রশ্ন, গত দশ বছরে দেশের ফুটবলের উন্নয়নে তাদের অবদানটা কী? আমি মনে করি, আসন্ন নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতেই তাদের এই প্রয়াস।
এদিকে বাফুফের বিরুদ্ধে শেখ জামালের আট ফুটবলার ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য করা রিট পিটিশনের শুনানি বৃহস্পতিবার (০৭ এপ্রিল) সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে। হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে গত রোববার এ শুনানি হওয়ার কথা ছিল।
বাফুফের আইনজীবী সূত্রে জানা গেছে, বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চে সকাল ১১টায় বাফুফে, শেখ জামাল কর্মকর্তা ও খেলোয়াড়রা উপস্থিত থাকবেন।
আরও জানা গেছে, আদালত বৃহস্পতিবার রায় দিতে পারেন, প্রয়োজনে দেরি করেও রায় দিতে পারেন। বৃহস্পতিবার শুধু শুনানি হতে পারে।
সংশ্লিষ্ট ৮ ফুটবলার হলেন- মামুনুল ইসলাম, নাসিরউদ্দিন চৌধুরী, শহীদুল আলম সোহেল, জামাল ভূঁইয়া, সোহেল রানা, রায়হান হাসান, ইয়ামিন মুন্না ও আলমগীর কবির রানা।

শেয়ার