খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের সড়ক-রেলপথ অবরোধ

oborodh
সমাজের কথা ডেস্ক॥ লাগাতার কর্মবিরতি শুরুর একদিন পর খুলনা ও যশোরের আটটি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকরা সড়ক ও রেলপথ অবরোধের ডাক দিয়েছে। সোমবার সকাল ৬টা থেকে ধর্মঘট শুরু হওয়ায় ওই পাটকলগুলোতে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে।
কর্মবিরতির পাশাপাশি মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত সড়ক ও রেলপথ অবরোধেরও ঘোষণা দেয় তারা।

পাটখাতে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দসহ পাঁচ দফা দাবিতে বাংলাদেশ রাষ্ট্রায়ত্ত জুট মিল সিবিএ-ননসিবিএ ঐক্য পরিষদের ব্যানারে এ কর্মসূচি চলছে বলে জানান পরিষদের আহ্বায়ক মো. সোহরাব হোসেন।
অবরোধের কারণে মহানগরীর খালিশপুরের নতুন রাস্তার মোড় এলাকায় সড়কে যানজট তৈরি হয়েছে। ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। এছাড়া কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি বলে পুলিশ জানিয়েছে।
কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া পাটকলগুলো হলো খুলনার খালিশপুরের প্লাটিনাম জুবিলী জুট মিল, ক্রিসেন্ট জুট মিল, দিঘলিয়ার স্টার, আটরা শিল্প এলাকায় আলীম, ইস্টার্ন এবং যশোরের নওয়াপাড়া শিল্প এলাকার জেজেআই ও কার্পেটিং জুট মিল।
সিবিএ-ননসিবিএ ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক মো. সোহরাব হোসেন বলেন, পাঁচদফা দাবিতে রোববার এক সমাবেশ থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ও অবরোধের ডাক দেওয়া হয়।
“সোমবার সকাল ৬টা থেকে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোতে ধর্মঘট শুরু হওয়ায় এসব মিলের উৎপাদন বন্ধ রয়েছে।”
এছাড়া মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত সড়ক ও রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হবে বলেও জানান তিনি।
তাদের পাঁচ দফা দাবির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো পাটখাতে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ, বকেয়া মজুরি প্রদান ও ২০ ভাগ মহার্ঘ ভাতা প্রদান।
খুলনা রেল স্টেশন মাস্টার মো. আমিনুর রহমান জানান, অবরোধের কারণে খুলনা থেকে বেনাপোল, ঢাকা ও রাজশাহীগামী ট্রেন ছেড়ে যেতে পারেনি। খালিশপুর থানার ওসি মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে শ্রমিকরা অবরোধ কর্মসূচি পালন করছেন।
একই কথা বলেন আটরা শিল্পাঞ্চল এলাকার খানজাহান আলী থানার ওসি মো. আখতার হোসেন।
রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোরর শ্রমিকদের কয়েক সপ্তাহের মজুরি বকেয়া পড়েছে।

শেয়ার