রিজার্ভ চুরি: আরও ৮ লাখ ডলার ফেরত দিলেন কিম

rezav
সমাজের কথা ডেস্ক॥ বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি যাওয়া রিজার্ভের অর্থ আরও প্রায় ৮ লাখ ৩০ হাজার ডলার ফিলিপিন্সের মুদ্রা পাচার কর্তৃপক্ষের (এএমএলসি) কাছে ফেরত দিয়েছেন ক্যাসিনোর জাঙ্কেট অপারেটর কিম অং।
সোমবার সকালে আইনজীবীর মাধ্যমে কিম ওই অর্থ ফেরত দেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন এএমএলসির নির্বাহী পরিচালক জুলিয়া বাকে-আবাদ।
তবে ৩৮ দশমিক ২৮ মিলিয়ন পেসোর মধ্যে দুটি ৫০০ পেসোর নোট জাল ধরা পড়ায় ফেরত দেওয়া কিছুটা জটিলতা সৃষ্টি হয় বলে দ্য ইনকোয়ারারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
জুলিয়া বলেন, সকাল ১১টা থেকে দুই ঘণ্টা ধরে ওই মুদ্রাগুলো গণনা করে দুটি জাল নোট পাওয়া যায়।
কিমের আইনজীবী ভিক্টর ফার্নান্দেজ বলেন, কিম অংয়ের আইনি পরামর্শক ইনোসেনসিও ফেরারকে নিজের পকেট থেকে ওই দুটি জাল নোট বদলে দিতে হয়েছে।
“ইস্টার্ন হাওয়াই লেইজার কোম্পানি এবং/অথবা মাইডাস ক্যাসিনোতে শুহুয়া গাওয়ের ফেলে যাওয়া তহবিল থেকে এই ৩৮ দশমিক ২৮ মিলিয়ন পেসো দেওয়া হয়েছে।”
ফিলিপিন্সে চুরি করে নিয়ে যাওয়া ৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের মধ্যে এর আগে ‘ধার উসুল’ হিসেবে পাওয়া ৪৬ লাখ ডলারের বেশি এএমএলসির কাছে ফেরত দেয় কিম অং।
তার এই আইনজীবী বলেন, কিম অংয়ের কাছ থেকে গাওয়ের ধার করা ৪৫০ মিলিয়ন পেসোর (প্রায় এক কোটি ডলার) বাকি অর্থ ফেরত দিতে আরও ১৫ থেকে ৩০ দিন লাগতে পারে।
ফেব্রুয়ারির শুরুতে ভুয়া নির্দেশনা পাঠিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্কে রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার ফিলিপিন্সের রিজল কর্মাশিয়াল ব্যাংক পাঠানো হয়।
রিজল ব্যাংকের চারটি অ্যাকাউন্ট থেকে ওই অর্থ ক্যাসিনোর জুয়ার টেবিলে হাতবদল হয়ে ফিলিপিন্সের মুদ্রা ব্যবস্থায় মিশে যায় বলে স্থানীয় পত্রিকাগুলি খবর প্রকাশ করে।

রিজার্ভ চুরির ঘটনার পেছনে চীনা বংশোদ্ভূত ক্যাসিনোর জাঙ্কেট অপারেটর কিম অংকেই মূল ব্যক্তি বলে সন্দেহ করা হচ্ছিল।
তবে এই ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার বেইজিংয়ের শুহুয়া গাও এবং ম্যাকাওয়ের ডিং জিজে নামে দুই জাঙ্কেট এজেন্ট ফিলিপিন্সে নিয়ে যায় বলে সিনেট কমিটির শুনানিতে দাবি করেছেন কিম অং।
অংয়ের ভাষ্যমতে, গাও প্রায়ই ফিলিপিন্সে যাওয়া-আসা করেন এবং গত আট বছর ধরে জুয়ার মক্কেল (জাঙ্কেট এজেন্ট) এনে দেন। এই মহলে পরিচিতি রয়েছে তার। ম্যাকাওয়ের ব্যবসায়ী ডিংকেও তিনিই তার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন।
গাও একবার সোলায়ার রিসোর্ট অ্যান্ড ক্যাসিনোতে এক সপ্তাহের মধ্যে ৪৫০ মিলিয়ন ফিলিপিনো পেসো (প্রায় এক কোটি ডলার) হেরে ওই অর্থ তার কাছ থেকে ধার করেছিলেন।
বাংলাদেশের চুরি যাওয়া অর্থ থেকে ওই এক কোটি ডলার গাও তাকে পরিশোধ করেন বলে সিনেট শুনানিতে দাবি করেন অং।

শেয়ার