আফগানিস্তানে অপহৃত ব্র্যাক কর্মকর্তারা উদ্ধার

afgan
সমাজের কথা ডেস্ক॥ দুই সপ্তাহ আগে আফগানিস্তানে অপহৃত ব্র্যাকের দুই কর্মকর্তাকেই অক্ষত অবস্থায় ফেরত পাওয়া গেছে।
বেসরকারি এই প্রতিষ্ঠানটির জ্যেষ্ঠ পরিচালক আসিফ সালেহ সোমবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে এই তথ্য জানিয়েছেন।

তারা হলেন- আফগানিস্তানে ব্র্যাকের প্রধান প্রকৌশলী হাজি শওকত আলী (৫২) এবং প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম খান সুমন (৩৫)।

আসিফ সালেহ সন্ধ্যায় বলেন, “তারা কিছুক্ষণ আগেই ছাড়া পেয়েছেন। তারা সুস্থ আছেন, তবে শারীরিকভাবে কিছুটা দুর্বল।”

বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিওটির এই দুই কর্মকর্তা গত ১৭ মার্চ সংঘাতপ্রবণ আফগানিস্তানের কুন্দুজ থেকে বাগলান যাওয়ার পথে অপহৃত হয়েছিলেন। অজ্ঞাত পরিচয়ের বন্দুকধারীরা তাদের তুলে নিয়েছিল।

সুমন পাবনা সদর উপজেলার দুবলিয়া গ্রামের বাসিন্দা, শওকতের বাড়ি একই জেলার ফরিদপুর উপজেলার হাংরাগাড়ি গ্রামে। শওকত ১০ বছর ধরে এবং সুমন চার বছর ধরে সিরাজুল আফগানিস্তানে রয়েছেন।
আফগানিস্তানে তালেবান জঙ্গিরা সক্রিয়। তবে দেশটির উত্তরাঞ্চলে দুই বাংলাদেশিকে ধরে নিয়ে যাওয়ায় কারা জড়িত, সে বিষয়ে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।
ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনালের পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, “আমরা স্থানীয় নেতাদের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করেছি। নানা মাধ্যমে তাদের উদ্ধারে আলোচনা চালিয়ে গিয়েছিলাম।”
এর আগে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেছিলেন, দুই ব্র্যাক কর্মকর্তাকে উদ্ধারে সর্বোচ্চ চেষ্টার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
এই ঘটনার পর কাবুলে যাওয়া ব্র্যাকের এশিয়া অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক জালাল উদ্দিনকে উদ্ধৃত করে সংস্থাটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “আলোচনার ভিত্তিতে স্থানীয় শূরা কাউন্সিলের সহায়তায় দুই সহকর্মী আমাদের মাঝে ফিরে এসেছেন।”
ভোরে অক্ষত অবস্থায় মুক্তি পেয়ে শওকত ও সুমন ব্র্যাকের কাবুল কার্যালয়ে চলে আসেন বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
দুজন এখন সেখানেই রয়েছেন জানিয়ে আসিফ সালেহ বলেন, তারা দেশে থাকা স্বজনদের সঙ্গে টেলিফোনে কথাও বলেছেন।
যুদ্ধ বিধ্বস্ত আফগানিস্তানে পুনর্গঠনের কাজে থাকা ব্র্যাকের কর্মীরা এর আগেও বেশ কয়েকবার আক্রান্ত হন।

২০০৭ সালে নূরুল ইসলাম নামে এক ব্র্যাক কর্মকর্তা অপহৃত হওয়ার ৮৩ দিন পর মুক্তি পান। ২০০৮ সালের অক্টোবরে গজনি প্রদেশ থেকে অপহৃত হন দুজন। ১০ দিন পর তাদের মুক্তি দেওয়া হয়।

শেয়ার