যশোরে ইউপি নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার ঘটনায় দুইটি মামলা

mamla
নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার ঘটনায় পৃথক দুইটি মামলা হয়েছে। পুলিশ এ মামলায় আনোয়ার হোসেন নামে এক পরাজিত মেম্বর প্রার্থীকে আটক করেছে। সদর উপজেলার বলরামপুর গ্রামের মাহমুদ হাসান ও ফারুক হোসেন বাদী হয়ে রোববার কোতোয়ালি মডেল থানায় এ মামলা করেন। মামলায় নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের পরাজিত মেম্বর প্রার্থী আনোয়ার হোসেনসহ ১৫জনকে আসামি করা হয়েছে।
অপর আসামিরা হলেন, একই এলাকার নজরুল ইসলাম, বাবু, নাজিম উদ্দিন, ইউসুফ আলী, ওহিদুজ্জামান, মিঠু, মোহাম্মদ আলী, ফেরদৌস আলম, বাপ্পি, মোমিন, গোলাম রসুল, আবুল হাসেম ও খালেক।
মামলার এজাহারে জানা গেছে, গত ৩১ মার্চ সদর উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডে হযরত আলী মেম্বর নির্বাচিত হন। কিন্তু একই এলাকার আনোয়ার হোসেন ওই নির্বাচনে পরাজিত হন। এ নির্বাচনে হযরত আলীর পক্ষে বলরামপুর গ্রামের আকরাম হোসেনের ছেলে মাহমুদ হাসান এবং ফারুক হোসেন অবস্থান নেয়ায় ক্ষিপ্ত হয় পরাজিত প্রার্থী আনোয়ার হোসেন। তারই জের ধরে ৩১ মার্চ রাত সাড়ে ৮টার দিকে আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে সহযোগী অন্য আসামিদের নিয়ে ফারুক হোসেনের বাড়িতে হামলা চালায়। বাড়ি ভাংচুর, লোকজনদের মারপিট এবং স্বর্ণালংকারসহ মালামাল লুটপাট করে।
পাশাপাশি ফারুক হোসেনের ভাই বড় ভাই মাহমুদ হাসান একজন স্কুল শিক্ষক। গত ২ এপ্রিল সকাল ৮টার দিকে বাড়ি থেকে স্কুলের উদ্দেশে রওনা হন। বলরামপুর গ্রামের পূর্ব পাড়ায় পৌঁছানো মাত্র আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে মাহমুদ হাসানের পথরোধ করে মারপিটসহ কাছে থাকা টাকা ছিনিয়ে নেয়।
পৃথক এ দু’টি ঘটনায় ফারুক হোসেন এবং মাহমুদ হাসান বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। এসকল মামলার প্রধান আসামি আনোয়ার হোসেনকে রোববার সকালে বাড়ি থেকে পুলিশ আটক করেছে।

শেয়ার