চীনের পদক্ষেপে ক্ষুব্ধ ভারত

alkaida
সমাজের কথা ডেস্ক॥ জাতিসংঘের আল কায়েদা-ইসলামিক স্টেট (আইএস) কালো তালিকায় পাকিস্তানি জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ ই মোহাম্মদের প্রধানকে অন্তর্ভুক্ত করার অনুরোধ করেছিল ভারত।
কিন্তু জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য চীন ভারতের অনুরোধ বাস্তবায়নে বাধ সাধায় ভারতীয় সরকার ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।
জানুয়ারিতে পাঠানকোট বিমান ঘাঁটিতে প্রাণঘাতী হামলার পরিকল্পনার জন্য জইশ ই মোহাম্মদকে দায়ী করেছে ভারত। গোষ্ঠীটির প্রধান মাওলানা মাসুদ আজহারকে জাতিসংঘ নিরপত্তা পরিষদের আল কায়েদা ও আইএসের সঙ্গে সম্পর্কিত কালো তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার অনুরোধ করেছিল ভারত।
কিন্তু চীন এতে আপত্তি জানায় বলে শুক্রবার জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত কূটনীতিকরা।
কাশ্মিরভিত্তিক জইশ ই মোহাম্মদকে জাতিসংঘের ১৫ সদস্য বিশিষ্ট নিরাপত্তা পরিষদ আরো আগেই কালো তালিকাভুক্ত করেছে। কিন্তু গোষ্ঠীটির প্রধান মাওলানা আজহার এই তালিকার বাইরে রয়েছেন। কট্টরপন্থি আজহার ভারতের দীর্ঘদিনের শত্রু।
চীনা পদক্ষেপের পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ওয়াশিংটনে ভারত সরকারের মুখপাত্র বিকাশ স্বরূপ বলেন, “যেখানে সন্ত্রাসবাদী কার্যক্রম এবং আল কায়েদার সঙ্গে সম্পর্কের কারণে ২০০১ সালে পাকিস্তানভিত্তিক জইশ ই মোহাম্মদকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে, সেখানে তাদের প্রধান নেতা, অর্থ যোগানদাতা এবং উস্কানিদাতাকে প্রক্রিয়াগত কারণে কালো তালিকাভুক্ত করা থেকে বিরত রাখা হয়েছে, এটি কিছুতেই আমাদের বোধগম্য হচ্ছে না।”
ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত পরমাণু সম্মেলনের ফাঁকে এক সংবাদ সম্মেলনে বিকাশ আরো বলেন, “সন্ত্রাসবাদের বিপদকে পরাজিত করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের যে দৃঢ় প্রতিজ্ঞা দরকার এই ঘটনায় তা প্রতিফলিত হয় না,”
তবে মাসুদ আজহারকে কালো তালিকাভুক্ত করার ভারতীয় প্রস্তাবে চীন কেন আপত্তি জানিয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কার হয়নি।

প্রক্রিয়াগত স্থগিতাদেশ তুলে নেওয়া যায় এবং এগুলো সাধারণত তখনই আরোপ করা হয় যখন নিরাপত্তা পরিষদের কোনো সদস্য প্রস্তাবটি সম্পর্কে আরো তথ্য দাবি করে।
তবে কখনো কখনো এগুলো কালো তালিকাভুক্ত করার প্রস্তাব স্থায়ীভাবে আটকে দেয়ার মতো পর্যায়েও চলে যায়।
বিষয়টি সম্পর্কে চীনের মনোভাব জানতে প্রশ্ন করা হলেও জাতিসংঘে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত বিস্তারিত কিছু জানাননি।

শেয়ার