দ্বিতীয় ধাপের ইউপি ভোটে বিক্ষিপ্ত গোলযোগ, ৫ জনের মৃত্যু

kendro
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে ৬৩৯টি ইউপিতে ভোট শেষ হয়েছে বিক্ষিপ্ত গোলযোগ ও জালিয়াতির অভিযোগের মধ্য দিয়ে।

ঢাকার কেরানীগঞ্জের হযরতপুর, যশোর সদরের চাঁচড়া এবং চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের বাউরিয়া ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সমর্থকদের গোলাগুলির মধ্যে প্রাণ গেছে এক শিশুসহ চারজনের।
জামালপুরের মেলান্দহে কেন্দ্রের বাইরে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় ‘হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে’ এক যুবকের মৃত্যুর খবর দিয়েছে পুলিশ।
প্রার্থীদের সমর্থকদের সংঘর্ষে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে ভোলা সদরের রাজাপুর ইউনিয়নেও। সেখানে আহত হয়েছেন সাংবাদিকসহ অন্তত ২০ জন।
এছাড়া ভোটের আগের রাতে যশোর সদরের লেবুতলা ইউনিয়নে ‘বোমা তৈরির সময়’ বিস্ফোরণে দুই যুবকের মৃত্যুর খবর জানিয়েছে পুলিশ।
কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার আরিফপুর ইউনিয়নেও একটি কেন্দ্রের বাইরে গোলাগুলি হয়েছে ভোটের সময়; হামলা হয়েছে বিএনপির প্রার্থীর ওপর। আদ্রা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর চাচার বাড়ি থেকে ১৫টি হাতবোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই প্রার্থীর ছেলেসহ ১৬ জনকে আটক করা হয়েছে।
যশোর সদরের চুড়ামনকাঠি ইউনিয়নের একটি কেন্দ্রে ব্যালটপেপারে সিল মারার জেরে তিন সদস্য প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। আটক হয়েছেন সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তাসহ চারজন।
চট্টগ্রামের সীতাকুনডুসহ বিভিন্ন উপজেলায় কেন্দ্র দখল করে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীর পক্ষে ভোট জালিয়াতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। অনিয়ম ও গোলযোগের কারণে অন্তত ১৮টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে বলে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

শেয়ার