মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের ধ্বংসাবশেষ মোজাম্বিকে!

mojam
সমাজের কথা ডেস্ক॥ অস্ট্রেলিয়ার বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, আফ্রিকার দেশ মোজাম্বিকে একটি বিমানের যে দু’টি ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে তা যে নিখোঁজ মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের বিমানেরই, তা ‘প্রায় নিশ্চিত’।

অস্ট্রেলিয়ার পরিবহনমন্ত্রী ড্যারেন চেস্টার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ধ্বংসাবশেষগুলো পরীক্ষার পর বিশেষজ্ঞরা এগুলোকে নিখোঁজ মালয়েশীয় বিমানের বলেই একরকম নিশ্চিত হয়েছেন। সাগরের ঢেউয়ের ধাক্কায় ধ্বংসাবশেষগুলো মোজাম্বিক উপকূলে ভেসে গেছে।
এগুলোকে পরীক্ষা করার জন্য অস্ট্রেলিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছে বিবিসি।

দুই বছর আগে কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং যাওয়ার পথে ২৯৩ জন যাত্রী নিয়ে নিখোঁজ হয় মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের বিমান এমএইচ৩৭০। আজও হদিস মেলেনি বিমানটির।
এ দু’বছরে ভারত মহাসাগরে তন্ন তন্ন করে অনুসন্ধান চালিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্বে বহুজাতিক উদ্ধারকারী দল। মাঝে ফ্রান্সের একটি দ্বীপসহ বেশ কিছু জায়গায় ধ্বংসাবশেষ পাওয়ার পর অনুসন্ধানকারীরা নিখোঁজ বোয়িং ৭৭৭ বিমানটি খুঁজে পাওয়ার ব্যাপারে আশার আলো দেখেছিলেন। কিন্তু তা স্থায়ী হয়নি।
এবার মোজাম্বিকে বিমানের ধ্বংসাবশেষ পেয়ে আশাবাদী হয়ে উঠেছে অস্ট্রেলিয়া। এতে এমএইচ-৩৭০ এর নিখোঁজ হওয়ার রহস্য উন্মোচনেরই আভাস পাওয়া যাচ্ছে। গত বছর ডিসেম্বর এবং এ বছর ফেব্রুয়ারিতে মোজাম্বিকে বিমানের ধ্বংসাবশেষগুলো খুঁজে পাওয়া যায়। খবর পেয়ে অস্ট্রেলিয়া কর্তৃপক্ষ এগুলো উদ্ধার করে।
অস্ট্রেলিয়ার পরিবহনমন্ত্রী চেস্টার বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, মোজাম্বিকে বিমানের যে ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে, তার সঙ্গে ফ্লাইট এমএইচ-৩৭০ এর যথেষ্ট মিল আছে। এক বিবৃতিতে তিনি আরও বলেন, “বিশেষজ্ঞদের বিশ্লেষণেও এটি প্রায় নিশ্চিত যে, ধ্বংসাবশেষ দু’টো এমএইচ৩৭০ বিমানেরই।”
মালয়েশিয়ার পরিবহন মন্ত্রী লিও তিয়ংও পরবর্তীতে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, বিমানটির ধ্বংসাবশেষ থেকে পাওয়া রঙের নমুনা থেকেই বোঝা যাচ্ছে এটি নিখোঁজ বিমানটিরই খন্ডাংশ।

শেয়ার