তামাক পণ্যে ছবিযুক্ত সতর্কবার্তা বাধ্যতামূলক

cancer
সমাজের কথা ডেস্ক ॥ এখন থেকে সব ধরনের তামাক পণ্যের মোড়কে সচিত্র সতর্কবার্তার বাধ্যবাধকতা কার্যকর হলেও তামাকবিরোধী সংগঠন প্রজ্ঞা বলছে, দুয়েকটি জর্দা কোম্পানি ছাড়া কোনো বিড়ি-সিগারেটের মোড়কে তা দেখা যায়নি।

শনিবার থেকে সচিত্র সতর্কবাণী ছাড়া কোনো তামাকজাত দ্রব্য বিক্রয় বা বাজারজাত করা যাবে না বলে জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের জারি করা এক গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

২০১৩ সালের এপ্রিলে ‘ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) (সংশোধন) আইন’ যে কয়েকটি কারণে প্রশংসিত হয়েছিল, তার একটি ছবিযুক্ত সতর্কবার্তা। তবে এই সতর্কবার্তা বাস্তবায়নের পদ্ধতি ছেড়ে দেওয়া হয় বিধির উপর।

সংশোধিত ওই আইনে তামাকজাত দ্রব্যের প্যাকেট, মোড়ক, কার্টন বা কৌটার উভয় পাশে মূল প্রদর্শনী তলের অন্তত ৫০ভাগ স্থানজুড়ে রঙিন ছবি ও লেখা সম্বলিত সতর্কবার্তা দেওয়ার বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়। যে সব প্যাকেট চৌকোণা নয় সেগুলোর মূল প্রদর্শনী তলের উপরে ৫০ ভাগ স্থানে এই সতর্কবার্তা রাখতে বলা হয়।

প্রায় ২ বছর সময় নিয়ে ২০১৫ সালের ১৯ মার্চ জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে ‘ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) বিধিমালা’ করে সরকার। তাৎক্ষণিক কার্যকারিতা দিয়ে করা বিধিমালা মেনে চলতে বাধ্যবাধকতা আসতে ১২ মাস সময় পায় তামাক কোম্পানিগুলো। ছাড়ের এই সময়সীমা শেষ হয়েছে ১৮ মার্চ।

গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, “১৯ মার্চ থেকে সচিত্র সতর্কবাণী ব্যতিত কোন তামাকজাত দ্রব্য বিক্রয় বা বাজারজাত করা যাবে না।”

সিগারেট, বিড়ি, জর্দা ও গুলসহ সব ধরনের তামাকজাত দ্রব্যের প্যাকেট, কার্টন, বা কৌটার উপরে অন্যূন শতকরা ৫০ভাগ স্থানজুড়ে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী থাকতে হবে।

শেয়ার