প্রত্যেক যুদ্ধাপরাধী বিচারের মুখোমুখি হবে: জয়

joy
সমাজের কথা ডেস্ক॥ প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, যতোই ষড়যন্ত্র হোক, প্রত্যেক যুদ্ধাপরাধীকে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে।
প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন জানান, বুধবার জার্মানির হ্যানোভারে এক সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতির বক্তৃতায় জয় এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, “কোটি কোটি ডলার খরচ করে বিশ্বব্যাপী যতোই লবিস্ট নিয়োগ করুক না কেন, বিচারের হাত থেকে কেউ রেহাই পাবে না।”
তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রদর্শনী সিবিটে যোগ দিতে জয়ের এই জার্মানি সফর। আমন্ত্রিত প্রযুক্তিবিদ হিসাবে বুধবার তিনি সিবিটে বক্তৃতাও করেন।
এ উপলক্ষেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও প্রবাসীদের পক্ষ থেকে এই সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়।
প্রবাসীদের ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ছেলে জয় বলেন, দেশের যে কোনো দুর্যোগের সময় প্রবাসীরা এগিয়ে আসেন।
“মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রবাসীরা দেশের জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে। পাঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর শত প্রতিকূলতার মাঝেও তারা বঙ্গবন্ধু পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন, আশ্রয় দিয়েছেন। ১/১১ এর পর প্রবাসীরাই প্রথম দেশের গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলন শুরু করেন।”
আগামীতেও তাদের আওয়ামী লীগের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে জয় বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আছে বলেই বাংলাদেশ জঙ্গি রাষ্ট্র হয়নি, ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হয়নি। বর্তমানে বিশ্বের তিনটি দ্রুত বর্ধনশীল দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি। যোগাযোগ, বিদ্যুৎ ও প্রযুক্তি খাতে বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে।
গত সাত বছরে বাংলাদেশে ‘ডিজিটাল বিপ্লব’ হয়েছে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা।
তিনি বলেন, কেবল শহরের মানুষ নয়, গ্রামের লোকও এর সুফল পাচ্ছে।
জয় বলেন, “ক্ষমতার জন্য নয়, আমরা দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে এসেছি। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য। দেশের একজন মানুষও দরিদ্র থাকবে না- এটাই আমাদের স্বপ্ন।”
অন্যদের মধ্যে তথ্য-প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পালক, সংসদ সদস্য ইমরান আহমেদ, জার্মানি আওয়ামী লীগের নেতা বশিরুল হক সাবু, শেখ আহমেদ বাদল ও জাহিদুল ইসলাম পুলক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

শেয়ার