নুরু হোটেলের অবৈধ দখল উচ্ছেদ করে ভবন বুঝে নিল যশোর পৌরসভা

nur hote
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর শহরের পুরাতন পৌরসভা ভবনে অবৈধভাবে দখল করে থাকা নুরু হোটেল বন্ধ করে দিয়েছে পৌরসভা। বুধবার রাত ৮টার দিকে পৌরসভার কর্মকর্তারা হোটেলটির অবৈধ দখল উচ্ছেদ করে ভবনটি বুঝে নেয়।
যশোর পৌরসভার সচিব আব্দুল্লাহ আল মাসুম জানিয়েছেন, ২০০৯ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে পৌরসভার কাছ থেকে নুরু হোটেলের মালিক হাজী বকুল ৫ বছরের চুক্তিতে ভাড়া নেয়। ২০১৪ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৫ বছরের জন্য মাসিক ১০ হাজার টাকার চুক্তিতে ভাড়া দেয়ার কথা। এরই মধ্যে ওই স্থানে বহুতল ভবন তৈরি করে মার্কেট নির্মাণের জন্য এলাকার সকল ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা করে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। সেকারণে ৪ জানুয়ারি হোটেল মালিক হাজী মুকুলকে নোটিশ দেন পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। ওই নোটিশের পরে ২০১২ সালে হাজী শেখ বকুল পৌরসভার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে মামলা করেন। মামলা চলাকালে তিনি ভাড়া বাবদ এসময় কোনো টাকা দেননি। ৪ বছর ২ মাস ভাড়া বাবদ তার কাছে ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা পাওনা হয় পৌরসভার। ২০১৪ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর পৌরসভার পক্ষে হাইকোর্টের বিচারক কাজী রেজাউল হক ও এবিএম আলতাফ হোসেনের বেঞ্চ রায়ে নুরু হোটেলকে পৌরসভার জায়গা ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়। কিন্তু তারপরও হাজী বকুল যায়নি। তাকে উঠে যাবার চিঠি দিলেও তিনি কোনো কর্ণপাত করেনি। সর্বশেষ গতকাল পৌরসভা কর্তৃপক্ষ হোটেলটি উচ্ছেদের পর সিলগালা করে দেয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন যশোর পৌসভার কাউন্সিলর মুস্তাফিজুর রহমান মুস্তা, সন্তোষ দত্ত, গোলাম মোস্তফা, রোকেয়া পারভিন ডলি, নাছিমা আক্তার, নির্বাহী প্রকৌশলী শরীফ হাসান প্রমুখ।
এ ব্যাপারে যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু বলেন, নুরু হোটেল ভাড়া ছাড়াই মামলা করে ব্যবসা করে আসছিল। হাইকোর্ট পৌরসভার পক্ষে রায় দেবার পরে আমরা উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছি। এখন থেকে অবৈধ উচ্ছেদ অভিযান পৌরসভা নিয়মিত পরিচালনা করবে।

শেয়ার