উপজেলায়ও চক্ষু বিশেষজ্ঞ থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

eye
সমাজের কথা ডেস্ক॥ জেলা-উপজেলার হাসপাতালে চক্ষু বিশেষজ্ঞদের সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা করার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বুধবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে বাংলাদেশ চক্ষু বিজ্ঞান চিকিৎসক সমিতির ৪৩তম বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব পর্যায়ের মানুষের কাছে উন্নত চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে তার সরকার।
“জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়া আমাদের মৌলিক দায়িত্ব।”
চোখের চিকিৎসকদের প্রতি দেশের মানুষের উন্নত ভবিষ্যৎ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “আপনারা যারা চক্ষু চিকিৎসক, চক্ষু বিশেষজ্ঞ আছেন, বাংলাদেশ যেন সব সময় আলোকিত ভবিষ্যৎ পায় সে লক্ষ্যে কাজ করবেন।”

চক্ষু চিকিৎসার যন্ত্রপাতি আমদানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা দেওয়ার আশাস দেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, “আমরা চাই, আমাদের দেশের মানুষ যেন মানসস্মত চিকিৎসা পায়, সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।”
গ্রামের মানুষের স্বাস্থ্যসেবার জন্য কমিউনিটি ক্লিনিক করার কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে আওমায়ী লীগ ক্ষমতায় আসার পর গ্রামাঞ্চলে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপনের কাজ শুরু হয়। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসার পর তা বন্ধ করে দেয়।
“২০০৯ সালে আমরা আবার ক্ষমতায় এসে কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করেছি। সেখান থেকে মানুষ সেবা পাচ্ছে।”
বর্তমানে সারা দেশে সাড়ে ১২ হাজারেরও বেশি কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে বিনামূল্যে বিভিন্ন ধরনের সেবা ও ওষুধ দেওয়া হয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত সাত বছরে দেশে ২৪টি সরকারি হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়েছে। এই সময়েই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়কে ‘সেন্টার অব এক্সিলেন্স’ হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে।
“চট্টগ্রাম ও রাজশাহীতে আরও দুটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় করা হচ্ছে। ভবিষ্যতে সিলেটেও মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় করা হবে।”
উন্নত চক্ষু চিকিৎসাসেবার লক্ষ্যে গোপালগঞ্জে শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট গড়ে তোলা হচ্ছে বলে জানান তিনি।
বর্তমানে সারা দেশে ৬১২টি সরকারি হাসপাতাল এবং সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে মেডিকেল কলেজ রয়েছে ১০০টি।

শেয়ার