সিরিয়া থেকে চলে যাচ্ছে রুশ সেনারা

syri
সমাজের কথা ডেস্ক॥ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সেনা প্রত্যাহারের আকস্মিক ঘোষণার পরদিন থেকেই সিরিয়া ছাড়তে শুরু করেছে রুশ সেনারা।
রাশিয়ার ‘রোশিয়া ২৪’ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ফুটেজে মঙ্গলবার সিরিয়ার লাতাকিয়া প্রদেশের মাইমিম রুশ বিমান ঘাঁটিতে সামরিক কর্মকর্তাদেরকে দেশে ফেরার জন্য পরিবহন বিমানে জিনিসপত্র তুলতে দেখা গেছে।
রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়ের ভিডিওতেও দেখা যায়, মাইমিম বিমান ঘাঁটি থেকে মঙ্গলবার সকাল এবং রাতে প্রথম দফায় কয়েকটি বিমান ছেড়ে গেছে।
সোমবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার পর হুট করেই সিরিয়া থেকে রুশ সেনা প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঘোষণা দেন পুতিন।
তিনি বলেন,“মঙ্গলবার থেকে সিরিয়ায় রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান অংশ প্রত্যাহার করা শুরু হবে।”
এর আগে মঙ্গলবার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, প্রেসিডেন্ট পুতিনের নির্দেশ অনুযায়ী মাইমিম বিমান ঘাঁটির টেকনিক্যাল স্টাফরা রাশিয়ার বিমান ঘাঁটিতে ফিরে আসার জন্য বিমানগুলোকে প্রস্তুত করতে শুরু করেছে। মাইমিম ঘাঁটিতে রাশিয়ার প্রায় ৫০টি বিমান ও হেলিকপ্টার রয়েছে।
সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের পক্ষে পাঁচমাস আগে দেশটিতে বিমান হামলা শুরু করে রাশিয়া। রাশিয়ার সেনা প্রত্যাহারের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন পশ্চিমা কর্মকর্তারা। তারা বলেন, এই উদ্যোগ সিরিয়া সরকারকে আলোচনায় যোগ দিতে বাধ্য করবে।
জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় সিরিয়ার প্রায় পাঁচ বছরের গৃহযুদ্ধের রাজনৈতিক সমাধানের পথ খুঁজতে আলোচনা চলছে।
আলোচনায় মধ্যস্থতাকারী জাতিসংঘের বিশেষ দূত স্তাফান দে মিস্তুরাও রাশিয়ার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ছেন।
তিনি বলেন, “জেনেভায় ইন্ট্রা-সিরিয়ান আলোচনার এবারের দফা শুরু হওয়ার প্রথম দিনে প্রেসিডেন্ট পুতিনের এ ঘোষণা নিশ্চিতভাবেই সুনির্দিষ্ট অগ্রগতি। আমরা আশা করছি, এটি চলমান আলোচনায় ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।”
রাশিয়া সিরিয়ায় কত সেনা মোতায়েন করেছিল সে বিষয়ে নিশ্চিত কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্য অনুযায়ী, ওই সংখ্যা তিন হাজার থেকে ছয় হাজারের মধ্যে।

শেয়ার