যশোরে সোহাগ ও বেনাপোলের মিঠুন হত্যা মামলায় দুই আসামি রিমান্ডে

rimand
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর শহরতলীর শেখহাটি এলাকার সোহাগ ও বেনাপোলের মিঠুন দাস হত্যা মামলায় দুই আসামিকে দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালালতের বিচারক মো. শাজাহান আলী এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
আসামিরা হলেন, যশোর সদরের কেসমত নওয়াপাড়ার আব্দুস সোবহানের ছেলে ইউনুচ মোল্ল্যা ওরফে শিমুল এবং বেনাপোলের গাজীপুর গ্রামের নুরু মিয়া বক্সের ছেলে ইমরান হোসেন।
মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, শহরের ইউনিক হাসপাতালে ওয়ার্ড বয়ের কাজ করতেন সোহাগ। ২০১৫ সালের ১৪ আগস্ট বিকেলে হাসপাতালে কাজের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফেরেনি সোহাগ। পর পরদিন সকালে উপশহরের এসএম সুলতান আর্ট কলেজের লেকের পশ্চিম পাশে পানির মধ্যে থেকে সোহাগের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ১৫ আগস্ট নিহতের পিতা নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো কিছু লোকের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন। পুলিশ হত্যার সাথে জড়িত সন্দেহে গত ৩ মার্চ শিমুলকে আটক আটকের পর ৩ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে সোপর্দ করে। বিচারক শুনানি শেষে তাকে ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। অপরদিকে, বেনাপোলে মিঠুন দাস ২০১৪ সালের ৬ অক্টোবর বেনাপোলের জামালের বাড়ি বেড়াতে আসেন। পরদিন জামালের বন্ধু আনিচ তার পিতাকে ফোন করে জানান মিঠুন মারা গেছেন। এ ব্যাপারে জামাল বাদী হয়ে বেনাপোল বন্দর থানায় অপমৃত্যু মামলা করেন। মিঠুনের ময়না তদন্ত রিপোর্টে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। পরবর্তীতে নিহত মিঠুনের পিতা নরেন দাস ২০১৫ সালের ২২ মার্চ অজ্ঞাতনামা আসামি দিয়ে বেনাপোল বন্দর থানায় মামলা করেন। এ হত্যাকা-ের সাথে জড়িত সন্দেহে গত রোববার ইমরান হোসেনকে আটকের পর ৭দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ। গতকাল তাকে ২দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক।

শেয়ার