ভারত থেকে আমদানি বন্ধ, দেশি গরু বেশি দামে কিনছেন ব্যবসায়ীরা॥ এক মাসেই মাংসের কেজিতে দাম বেড়েছে ৭০ টাকা

deshi goru
সালমান হাসান॥
যশোরে গত একমাসে গরুর মাংস ৩৫০ টাকা কেজি থেকে বেড়ে ৪২০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। ভারত থেকে গরু আমদানি বন্ধ থাকায় এবং দেশি গরুর দাম বেড়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবে বেড়েছে মাংসের দাম। তবে অনেক ক্রেতার অভিযোগ বাজার মনিটরিং না থাকায় মাংসের দামের লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না।
যশোরের ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গত একমাস আগেও বাজারে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছিলো ৩৫০ টাকা কেজি। বর্তমানে কেজি প্রতি ৭০ টাকা বেড়ে ৪২০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। এদিকে, পোল্ট্রি মুরগির দাম বেড়ে ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
শনি ও রোববার শহরের কাঠেরপুল, রেলবাজার, বড়বাজার, চাঁচড়া মোড়, রেলগেট, পুলেরহাট ও ধর্মতলা বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতিকেজি গরুর মাংস ৪শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে কাঠেরপুল এলাকায়। গত শুক্রবার এখানে প্রতিকেজি মাংস ৪২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। কয়েকজন নিয়মিত ক্রেতা জানিয়েছেন, অন্যান্য দিনের তুলনায় শুক্রবার তুলনামূলক বেশি দামে এখানে গরুর মাংস বিক্রি হয়। তাদের একজন উপশহরের বাসিন্দা রেজওয়ান আহমেদ বলেন, শুক্রবার তিনি বাড়ির জন্য ৮৪০ টাকা দিয়ে ২ কেজি মাংস কিনেছেন। একই সাথে দাবি করেছেন শহরের খড়কি এলাকার গাজির বাজারের অয়ন ছাত্রাবাসের রাজু আহমেদ ও হাফিজুর রহমান। তাদের দাবি গত মাসেও কাঠেরপুল বাজারে প্রতিকেজি গরুর মাংস ৩৬০ টাকা ছিল। শুক্রবার সকালে তারা ২ কেজি মাংস কেনেন ৪২০ টাকা কেজি দরে। শনিবার সকালে রেলবাজার এলাকায় গিয়ে দেখা যায় ৪শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে গরুর মাংস। এ বাজারে আলাপকালে রায়পাড়া এলাকার বাসিন্দা হালিমা খাতুন ও আম্বিয়া খাতুন জানান, গরুর মাংস কেনা তাদের মতো স্বল্প আয়ের মানুষের সাধ্যের বাইরে। সে কারণে পোল্ট্রি কিনে বাড়ি ফিরছেন। তবে সেখানেও দাম বাড়তি বলে অভিযোগ করেন ওই দুই নারী। তাদের দাবি কিছুদিন আগে কেটে বিক্রি করা পোল্ট্রির দাম ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা ছিল। বর্তমানে ১৮০ টাকায় পৌঁছেছে।
এদিকে, যশোর ইনস্টিটিউটের লাইব্রেরি বিভাগের কর্মী আহাদ আলী জানান, হাশিমপুর বাজারে গত শুক্রবার ৪শ’ টাকা কেজিতে গরুর মাংস বিক্রি হয়েছে। দাম বৃদ্ধির ব্যাপারে তিনি বলেন, আমাদের মত সাধারণ মানুষেরা গরু মাংস কিনে খাওয়ার সাধ্য হারিয়ে ফেলেছে।
অনুসন্ধানে জানা যায়, আগে গরুর মাথার মাংস অপেক্ষকৃত কম দামে বিক্রি হতো। প্রতিকেজি মাথার মাংস ১৭০ টাকায় মিলতো। বর্তমানে সেটি ২৫০ থেকে ২৬০ টাকায় বিক্রি করছেন মাংষের দোকানিরা। ডালমিল এলাকার বাসিন্দা মাহাবুব হাসান সেলিম জানান, কয়েকদিন আগে পুলেরহাট বাজার থেকে দেড় কেজি গরুর মাথার মাংস ২৫০ টাকা কেজি দরে কিনেছেন। তিনি দাবি করেন, এক দেড় মাস আগেও যার দাম ১৬০ থেকে ১৭০ টাকার মধ্যে ছিল।
শহরের কাঠেরপুল এলাকার সাব্বির বিফ হাউজের কর্মী এনামুল হক গরুর মাংসের মূল বৃদ্ধির প্রধান কারণ হিসেবে জানিয়েছেন। তিনি দাবি করেন, গ্রাম থেকে খামারিদের কাছ থেকে আগের চেয়ে তুলনামূলক বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। একশ’ কেজি ওজনের একটি গরুর দাম ৪০ হাজার টাকার উপরে পড়ছে। যে কারণে বাড়ছে গরুর মাংসের দাম। এ সময় অপর মাংস ব্যবসায়ী সাজ্জাদ কোরাইশ বলেন, বর্তমানে বেশি দামে গরু কিনতে হচ্ছে। চামড়ার দাম কমে গিয়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে দাম বাড়াতে হচ্ছে।

শেয়ার