প্রশ্নবিদ্ধ সানি-তাসকিনের অ্যাকশন, বিস্মিত বাংলাদেশ

sony

সমাজের কথা ডেস্ক॥ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচে তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন আম্পায়াররা। কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ দলের কাছে খবরটি এসেছে তুমুল বিস্ময় হয়ে।
বুধবার নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে বাংলাদেশের স্বস্তির জয়ের পরই শোনা যায় অস্বস্তির এই গুঞ্জন। তবে আইসিসি আনুষ্ঠানিকভাবে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিষয়টি জানায় বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে। এর আগেই অবশ্য দুপুরে হিমাচল প্রদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন মাঠে বাংলাদেশের অনুশীলনের আগে সংবাদ সম্মেলনে খবরটি নিশ্চিত করেন কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহে।
“আমাদের দুজন বোলারকে নিয়ে আম্পায়াররা সংশয়ের কথা জানিয়েছে। ওদের অ্যাকশন রিপোর্টেড হয়েছে। আমরা আইসিসির প্রক্রিয়া মেনেই এগোব।”
বাংলাদেশ কোচ জানালেন, গোটা দলের কাছে বড় বিস্ময় হয়ে এসেছে আম্পায়াদের সন্দেহের খবরটি।
“আমাদের জন্য খবরটি ছিল বিস্ময়কর। কারণ সাম্প্রতিক সময়ে ওরা অনেক ক্রিকেট খেলেছে, প্রশ্ন ওঠেনি। যাহোক, আম্পায়ার-ম্যাচ রেফারি সংশয় জানিয়েছে। আমরা সেটা মেনে নিচ্ছি। কিন্তু আমার মনে হয় না, আমরা যেভাবে খেলছি, তাতে এটা কোনো প্রভাব ফেলবে।”
কোচ জানালেন, সানি-তাসকিন নির্ভারই আছেন। বাংলাদেশ দলও আছে তাদের পাশে।
“ব্যাপারটা হলো ওরা এটাকে কিভাবে নিচ্ছে। এই ছেলে দুটি মানসিকভাবে অনেক শক্ত। ওরা জানে যে ওরা যা করছে ঠিকই করছে। আমাদেরও ওদের অ্যাকশন নিয়ে সংশয় নেই।”
“আমি আম্পায়ারদের সঙ্গে কথা বলিনি। তবে তাদের বিষয়টা ভাবনার তো বটেই। তারা আমার বোলারদের নিয়ে সংশয় জানিয়েছে; আমার সংশয় আছে তাদের ভূমিকা নিয়ে।”
আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী, কোনো বোলারের অ্যাকশন প্রশ্নবিদ্ধ হলে দুই সপ্তাহের ভেতর আইসিসি অনুমোদিত কোনো ল্যাবে অ্যাকশনের পরীক্ষা দিতে হয়। তবে আইসিসি টুর্নামেন্ট চলাকালে নিয়মটি একটু ভিন্ন। এখানে সময় ৭ দিন।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আইসিসি জানিয়েছে, বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে কথা বলে যত দ্রুত সম্ভব চেন্নাইয়ে আইসিসি অনুমোদিত ল্যাবে এই দুই বোলারকে পাঠানোর চেষ্টা চলছে। পরীক্ষার ফল না আসা পর্যন্ত তাসকিন-সানির বোলিং করে যেতে বাধা নেই।

শেয়ার