মীর কাসেমের স্ত্রী-ক্যাডম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা কোথায়: ইমরান

imra
সমাজের কথা ডেস্ক॥ দুই মন্ত্রীকে তলবের মতো যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেম আলীর স্ত্রী এবং তাদের পক্ষের বিদেশি আইনজীবী টবি ক্যাডম্যানের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা চেয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ।
“দুজন মন্ত্রীকে ডাকা হয়েছে, কিন্তু একই ধরনের বক্তব্য নিয়ে বিবৃতি দিয়েছে মীর কাসেমের স্ত্রী ও তাদের লবিস্ট টবি ক্যাডম্যান, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া উচিৎ ছিল,” বলেছেন মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার।
জামায়াতে ইসলামীর নেতা মীর কাসেমের মৃত্যুদন্ড বহাল রেখে আপিলের রায়ের পরদিন বুধবার শাহবাগে সমাবেশে একথা বলেন তিনি।
মঙ্গলবার রায়ের পর মীর কাসেমের স্ত্রী খোন্দকার আয়েশা খাতুন এক প্রতিক্রিয়ায় শুনানিতে প্রধান বিচারপতির বক্তব্য ধরে বলেছিলেন, এই রায়ের আইনি ভিত্তি নেই।
এই মামলায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটরদের কাজে অসন্তোষ প্রকাশের পর দুই মন্ত্রী কামরুল ইসলাম ও আ ক ম মোজাম্মেল হক প্রধান বিচারপতিকে বাদ রেখে নতুন বেঞ্চে পুনঃশুনানি দাবি করেন।
আপিল বিভাগ মঙ্গলবার রায়ের আগে এক আদেশে দুই মন্ত্রীকে তলব করে তাদের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দাবি করেছে।
জামায়াতের নিয়োগ পেয়ে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলে আসা ব্রিটিশ আইনজীবী টবি ক্যাডম্যানও প্রধান বিচারপতির বক্তব্য ধরে লিখেছিলেন, আপিল বিভাগ এই বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। মীর কাসেমের মৃত্যুদন্ডের রায়ের প্রতিক্রিয়ায় বুধবার সারাদেশে হরতাল ডেকেছিল জামায়াত, তার প্রতিবাদে শাহবাগে মিছিল-সমাবেশ করে গণজাগরণ মঞ্চ।
ইমরান বলেন, “এই হরতাল ডেকে জামায়াত সর্বোচ্চ আদালতের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।
“আমরা বিচার বিভাগকে বলতে চাই, যারা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে, আদালতের বিরুদ্ধে হরতাল ডাকছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।”

মতিউর রহমান নিজামী ও মীর কাসেম আলীর রায় দ্রুত কার্যকরের দাবিও জানান গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র।

শেয়ার