চট্টগ্রামে হিমেল হত্যায় ৬ জনের ফাঁসির রায়

himel
সমাজের কথা ডেস্ক॥ এসএসসি পরীক্ষার্থী হিমেল দাশ সুপেনকে অপহরণের পর হত্যার দায়ে ছয়জনকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছে চট্টগ্রামের একটি আদালত। বুধবার চট্টগ্রাম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মো. সেলিম মিয়া এ দন্ডাদেশ দেন। ।
দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মাহমুদুল ইসলাম, তার ভাই নজরুল ইসলাম ওরফে লাল মিয়া, সুনীল দাশ, মিজানুর রহমান চৌধুরী, মো. হোসেন ওরফে সাগর ও মো. সেলিম।
এদের মধ্যে প্রথম চারজন রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। হোসেন ও সেলিম পলাতক বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন বাদী পক্ষের আইনজীবী বিবেকানন্দ চৌধুরী।
তিনি জানান, ২০১১ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর আদালতে এই ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোপত্র দাখিল করা হয়। পরের বছরের ২৭ অগাস্ট তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন হয়।
১৫ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বুধবার বিচারক এ রায় ঘোষণা করেন।
২০১১ সালের ৮ মে বন্ধুদের সাথে বান্দরবান বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয় চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী হিমেল।
হত্যামামলায় মৃত্যুদন্ডে দন্ডিতরা হত্যামামলায় মৃত্যুদন্ডে দন্ডিতরা এরপর থেকে কোনো খোঁজ না পাওয়ায় ১১ মে ডবলমুরিং থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেন তার মা পাপিয়া সেন। এর তিন দিন পর বান্দরবানের জঙ্গল থেকে হিমেলের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ১২ মে প্রকাশিত এসএসসি’র ফলাফলে হিমেল জিপিএ-৫ পেয়েছিল।

পারিবারিক সম্পদ দখলের উদ্দেশ্যে হিমেলকে হত্যা করা হয়েছিল বলে সে সময়ে সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেছিলেন তার মা পাপিয়া সেন।
পাপিয়ার দাবি ছিল, হিমেলের কাকা সুনীল দাশ এ হত্যাকান্ডে জড়িত। হিমেলের বাবা রেলওয়ের সাবেক কর্মকর্তা সুশীল কুমার দাশকেও ২০০৬ সালে পারিবারিক সম্পদের জন্য হত্যা করা হয়েছিল।
মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) এম এ নাসের জানান, দন্ডবিধির ৩০২ ও ৩৩৪ ধারায় মাহমুদুল, তার ভাই নজরুল, হোসেন ও সেলিমকে মৃত্যুদন্ড ও ১০ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড দিয়েছে আদালত। ৩০২ ও ১০৯ ধারায় মিজান ও সুনীলকে মৃত্যুদন্ড ও অর্থদন্ড করা হয়।
এদিকে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ৫ ধারায় নজরুল ইসলাম ছাড়া অন্য পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের পাশাপাশি এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে বলে জানান নাসের।
পিপি বলেন, মামলায় অভিযুক্ত ছয়জন ছাড়াও মিয়ানমারের দুই নাগরিককে আসামি করা হয়েছিল। কিন্তু তাদের বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া না যাওয়ায় মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

শেয়ার