মুস্তাফিজকে ছাড়াই আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ, ঘাটতি হোমওয়ার্কেও

mustafiz

সমাজের কথা ডেস্ক॥ এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডসকে নিয়ে খুব একটা হোমওয়ার্ক করার সুযোগ মেলেনি বাংলাদেশের।
আজ বুধবার ধর্মশালায় প্রথম রাউন্ডে নিজেদের প্রথম ম্যাচে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে খেলবে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। তার আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক জানান, দ্রুত প্রতিপক্ষ সম্পর্কে জানতে বসবেন তারা। আর উদ্বোধনী ম্যাচে হয়ত পাওয়া যাচ্ছে না দলের সেরা অস্ত্র মোস্তাফিজকে।
মাশরাফি জানান, “কালকের (সোমবার) আগ পর্যন্ত তো আমরা ফাইনাল নিয়েই পড়েছিলাম। আমাদের ভারতকে নিয়ে কাজ করতে হয়েছে।”
মাশরাফি জানান, এশিয়া কাপের ফাঁকেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রতিপক্ষ নিয়ে কাজ এগিয়ে রেখেছিলেন কোচিং স্টাফরা।
“আমরা আজ-কাল বসবো। বুধবার তো অত সময় নেই। গতকাল এলাম, আজ অনুশীলন করলাম। অবশ্যই কাজ করতে হবে।”
নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে দুটি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলেছে বাংলাদেশ। ২০১০ ও ২০১১ সালে খেলা দুটি ওয়ানডেই ৬ উইকেটে জিতেছিল তারা। ২০১২ সালের জুলাইয়ে নেদারল্যান্ডসের রাজধানী দ্য হেগে খেলা দুই টি-টোয়েন্টির একটি ৮ উইকেটে জেতে বাংলাদেশ, অন্যটি হারে ১ উইকেটে।
প্রায় চার বছর পর নেদারল্যান্ডসের মুখোমুখি হলেও প্রতিপক্ষ সম্পর্কে জানতে খুব একটা সমস্যা হবে বলে মনে করছেন না মাশরাফি, “এর মধ্যে তারা অনেক ক্রিকেট খেলেছে। তাদেরটা বের করা এত কঠিন হবে না।”
আর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে মুস্তাফিজুর রহমানের না খেলা এক রকম নিশ্চিত। শঙ্কা আছে তার প্রথম রাউন্ডে খেলা নিয়েই।
মঙ্গলবার ধর্মশালায় বাংলাদেশ দলের প্রথম অনুশীলন সেশনে দলের সঙ্গেই রানিং-স্ট্রেচিং করেছেন মুস্তাফিজ। কিন্তু নেট সেশন শুরু হতেই খানিকটা দলছুট এই বাঁহাতি পেসার। ঘণ্টা দুয়েকের নেট সেশনে দলের অন্যরা যখন ঘাম ঝরালেন ব্যাট-বলে, মুস্তাফিজ তখন এক পাশে ছিলেন ফিজিও বায়েজিদুল ইসলামের সঙ্গে। পুরো সময়টাই নানা ফিটনেস ড্রিল করে গেলেন ফিজিওর হাতে নির্দেশনা মত।
গত কয়েক দিন ধরে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া চলছে মুস্তাফিজের। চলবে খুব সম্ভবত আরও কিছু দিন। যে ‘সাইড স্ট্রেইন’ নিয়ে এশিয়া কাপের মাঝপথে ছিটকে গিয়েছিলেন তরুণ পেসার, সেটি তাকে বাইরে রাখছে বিশ্বকাপের শুরুতেও। অবস্থার অতি নাটকীয় উন্নতি না হলে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে মুস্তাফিজকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ।
আনুষ্ঠানিকভাবে অবশ্য এই ঘোষণা দেওয়া হয়নি। তবে দলের একটি সূত্র জানিয়েছেন, সেরে উঠতে আরও ৭ থেকে ১০ দিনও লেগে যেতে পারে মুস্তাফিজের। ভাগ্য খারাপ হলে, আরও দিন দুয়েক বেশি। প্রথম রাউন্ডের সব ম্যাচেই হয়ত সেরা বোলারকে ছাড়া মাঠে নামতে হবে দলকে।
কৌশলগত কারণেই হয়ত সংবাদ সম্মেলনে মুস্তাফিজের অবস্থা নিয়ে রাখঢাক রেখে উত্তর দিয়েছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ধমর্শালায় ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে মুস্তাফিজকে নিয়ে কৌতুহলটা রেখে দিলেন অধিনায়ক।
“মুস্তাফিজের চোট আছে, এটা তো পরিষ্কারই। ফিজিওর সঙ্গে বসতে হবে আমাদের। ফিজিও তাকে দেখছে। এই মুহূর্তে বলতে পারছি না।”
অধিনায়ক যেটা বলতে পারছে না, সেটা বলে দিয়েছে দলের অনুশীলনের নানা চিত্রই। ফিটনেস ড্রিলেই সময় কাটিয়েছেন মুস্তাফিজ, বল করেননি নেটে। তবে বল হাতে বোলিং রান আপে দৌড়েছেন কিছুক্ষণ।
অনুশীলন শেষে, সবাই যখন কিটব্যাগ গুছিয়ে ফিরছেন ড্রেসিং রুমে, মুস্তাফিজ এগিয়ে গিয়ে কুড়িয়ে নিলেন একটি বল। ভঙ্গি করলেন বোলিং করার। দীর্ঘায়িত হচ্ছে তার অপেক্ষা, অপেক্ষায় বাংলাদেশও। আপাতত দলের মূল অস্ত্রকে ছাড়াই চলছে রণপরিকল্পনা।

শেয়ার