মাহমুদউল্লার চোট ও স্বস্তি

mahamudu
সমাজের কথা ডেস্ক॥ বাংলাদেশের অনুশীলনে আঙুলে চোট পেয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। তবে চোট গুরুতর কিছু নয়, শঙ্কা নেই তার খেলা নিয়ে।
বিশ্বকাপ শুরুর আগে একমাত্র অনুশীলন সেশন বাংলাদেশ ব্যাট করেছে সবুজ উইকেটে। বল লাফিয়েছে অনেকটাই। তেমনই একটি ডেলিভারি লেগেছিল মাহমুদউল্লাহর ডানহাতের তর্জনিতে। সঙ্গে সঙ্গে নেট ছেড়ে বেরিয়ে এসেছেন। ফিজিওকে বলেছেন আঙুলে প্রচন্ড ব্যথা। তবে শেষ পর্যন্ত খুব গুরুতর হয়নি সেই চোট। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে পরে আবার নেটে ব্যাটিং করেছেন মাহমুদউল্লাহ। পরে মাঠ থেকে হোটেলে ফেরার পথে টিম বাসে ওঠার আগে জানালেন নিজের অবস্থা, “খুব সিরিয়াস কিছু হয়নি, ঠিক আছি।”
বাংলাদেশ অধিনায়কের সংবাদ সম্মেলনে অবশ্য অনেকবারই এসেছে মাহমুদউল্লাহর নাম। সেটি তার চোটের কারণে নয়, ফর্মের কারণে। এশিয়া কাপে ব্যাট হাত দুর্দান্ত পারফর্ম করে বাংলাদেশের আড়ালের তারকাই এখন আগ্রহের মূল কেন্দ্রে। প্রতিপক্ষ ক্রিকেটার, সংবাদ মাধ্যম, সবার আগ্রহ মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে।
মাহমুদউল্লাহর ফর্ম নিয়ে যেমন উচ্ছ্বসিত মাশরাফি বিন মুর্তজা, তেমনি শুনতে হলো প্রশ্নও। এমন ফর্মে থাকা ব্যাটসম্যান কেন ব্যাটিং অর্ডারে এত নিচে? ছয়ের বদলে চার-পাঁচে কেন নয়! অধিনায়ক মনে করিয়ে দিলেন দলে মাহমুদউল্লাহর ভূমিকার কথা।
“একটা দলে যখন কেউ নিচে নেমে পারফর্ম করে, তখন অনেক সময়ই এই কথা ওঠে। অনেক দিন ধরেই দেখে আসছি, বলা হয়, ‘ওকে কেন ওপরে খেলানো হচ্ছে না!’ কিন্তু রিয়াদের নির্দিষ্ট ভূমিকা আছে দলে। আমরা ওকে নিয়ে যে পরিকল্পনা করেছিলাম, সেটি প্রায় সফল। আমরাও চাই রিয়াদকে যতটা সম্ভব ব্যাট করাতে, তবে সেটি আমাদের পরিকল্পনায় থেকেই।”
তাছাড়া চার ও পাঁচ নম্বরে যে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা দুজন ব্যাটসম্যান ব্যাট করেন, সেটিও মনে করিয়ে দিয়েছেন মাশরাফি।
“মুশফিক-সাকিব কিন্তু বাংলাদেশ দলকে যথেষ্ট সার্ভিস দিয়েছে। এসব ভুলে গেলে চলবে না। আমরা তো এক জনের কাছ থেকে বেশি পেতে দুই জনকে হারাতে চাই না। আর দলে বেশি নাড়াচাড়া করাও ঠিক হবে না। টি-টোয়েন্টিতে আমরা ভালো করতে শুরু করেছি। এখন যে পরিকল্পনায় থেকে ভালো করেছি, সেটা বাইরে যাওয়া ঠিক হবে না। যতটা সম্ভব মাথা ঠাণ্ডা রাখতে হবে।”

শেয়ার