এখনো শিউরে ওঠেন ডালিম হোটেলে নির্যাতিতরা

dalim
সমাজের কথা ডেস্ক॥ একাত্তরে চট্টগ্রামের বদর কমান্ডার মীর কাসেম আলীর নেতৃত্বে ডালিম হোটেলে মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোক ও হিন্দুদের ধরে এনে অকথ্য নির্যাতনের পর হত্যা করা হত।
ওই সময় জামায়াতের অঙ্গ সংগঠন ইসলামী ছাত্র সংঘ চট্টগ্রামের সভাপতি মীর কাসেমের নেতৃত্বে আরও তিনটি জায়গাকে ‘টর্চার সেল’ বানানো হয়েছিল।
তবে নির্যাতনের ভয়াবহতার দিক থেকে আন্দরকিল্লার পুরাতন টেলিগ্রাফ রোডের ডালিম হোটেল অন্যগুলোকে হার মানায়।
চট্টগ্রাম শহরের চাক্তাই এলাকায় দোস্ত মোহাম্মদ ভবন, দেওয়ানহাটের দেওয়ান হোটেল ও পাঁচলাইশ এলাকার সালমা মঞ্জিলেও ছিল নির্যাতন কেন্দ্র।
চট্টগ্রাম শহরের কোথাও মুক্তিযোদ্ধারা লুকিয়ে আছে সংবাদ পেলেই মীর কাসেম আলী ও তার সহযোগীরা পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে নিয়ে সেখানে অভিযান চালাতো।

মীর কাসেম আলী মীর কাসেম আলী মীর কাসেমের বিরুদ্ধে আন্তর্জতাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যে ১৪টি অভিযোগ আনা আনা হয়েছিল তার মধ্যে ১২টিই মুক্তিযোদ্ধাদের ধরে এনে ডালিম হোটেলের টর্চার সেলে নির্যাতন ও হত্যার।
এই টর্চার সেলে নির্যাতনের শিকার জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের বয়ানেও ভয়াবহতার কথা উঠে এসেছে। ট্রাইব্যুনালের দেওয়া রায়েও ডালিম হোটেলকে ‘ডেথ ফ্যাক্টরি’ বলা হয়েছে।
এখানে মীর কাসেমের নেতৃত্বে আল বদর সদস্যরা পাকিস্তানি সেনাদের সহায়তায় মুক্তিযোদ্ধাদের ধরে এনে নির্যাতন করতো। নির্যাতনে অনেকেই মৃত্যুবরণ করতেন অথবা কাউকে মেরে ফেলার জন্য চাক্তাই চামড়ার গুদাম এলাকায় কর্ণফুলী নদীর পাড়ে নিয়ে যাওয়া হতো।
ডালিম হোটেলের নির্যাতনের কথা ভেবে এখনো শিউরে ওঠেন নির্যাতনের শিকার অনেক মুক্তিযোদ্ধা।
একাত্তরের তাদের অনেককেই ধরে এনে ইলেকট্রিক শক, উল্টো করে ঝুলিয়ে পেটানো, ঠোঁট থেতলে দেওয়া, হাত-পা ভেঙ্গে দেওয়া, বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে রক্তাক্ত করাই ছিল বদর বাহিনীর কাজ, যেগুলোর নির্দেশদাতা ছিলেন মীর কাসেম আলী।
মুক্তিযুদ্ধে চট্টগ্রাম শহরের বিএলএফের একজন কমান্ডার ছিলেন সৈয়দ মো. এমরান। একাত্তরের ৩০ নভেম্বর চান্দগাঁও এলাকার বাড়ি থেকে এমরানসহ তার পরিবারের ছয় সদস্যকে ধরে নিয়ে আসে মীর কাসেম আলী ও পাক সেনারা।
তিনি বলেন, “পুরো বাড়ি ঘেরাও করে আমাদের ছয় জনের পাশাপাশি আশপাশের বাড়ি থেকে মুক্তিযোদ্ধাসহ আরও আটজনকে ধরে ডালিম হোটেলে নেওয়া হয়।
“দোতলার একটি কক্ষে চোখ বাঁধা অবস্থায় আমাকে আটকে রেখে প্রতিদিনই শারীরিক নির্যাতন চালাতো।”
নির্যাতন ও হত্যাকান্ড মীর কাসেমের নির্দেশেই হতো জানিয়ে এমরান বলেন, “আমি নিজের চোখে মীর কাসেমকে দেখেছি ডালিম হোটেলে। সে নিজেই আমার নাম ঠিকানা এন্ট্রি করেছিল।’’
“তার (মীর কাসেম) নির্দেশেই চোখ বাঁধা অবস্থায় দিগম্বর করে পেটানো হত। রক্তাক্ত অবস্থায় আমাদের অন্ধকার কক্ষে ফেলে রাখা হত। দুদিন পর বাসি খাবার দেওয়া হত এবং পানি চাইলে টয়লেট থেকে বদনা করে পানি দেওয়া হত। অনেককে পানির বদলে পশ্রাব খেতে দেওয়া হয়েছে।”
বিভিন্ন কক্ষ থেকে বন্দিদের আর্ত-চিৎকারে তিনতলা ভবনের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠত উল্লেখ করে এই মুক্তিযোদ্ধা বলেন, “সেই সময়ের নির্যাতনের কথা ভাবলে এখনো শিউরে উঠি।’’
ডালিম হোটেলেরই একটি কক্ষে কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিমকে নির্যাতন করে হত্যা করার কথা তিনি অন্যান্য বন্দিদের কাছে শুনেছেন বলেও জানান।
ওই হোটেলে মীর কাসেম আলী এলে বদর সদস্যরা ‘ডা. খান আ গ্যায়া…, কাসেম সাব আ গ্যায়া’ বলে হাঁক পাড়ত বলে জানান তিনি। ১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীনতার পর তিনি অন্যান্য বন্দিদের সঙ্গে মুক্ত হন।
একাত্তরে নির্যাতিত হয়েছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক নাসির উদ্দিন চৌধুরীও, আন্দরকিল্লার নজির আহমদ চৌধুরীর একটি আশ্রয়স্থল থেকে নাসির উদ্দিনকে ডালিম হোটেলে ধরে আনে বদর সদস্যরা।
তিনি বলেন, “আলবদর বাহিনীর হেডকোয়ার্টার ছিল এ ডালিম হোটেল। নভেম্বরের শেষ দিকে আমাকে তারা ধরে আনে। তাদের নির্যাতনের পদ্ধতি ছিল পৈশাচিক। প্রতিদিনই তিনতলা ভবনের বিভিন্ন কক্ষ থেকে বন্দিদের আর্তনাদের শব্দ পেতাম।’
তাকেও মীর কাসেমের নির্দেশে অমানুষিক নির্যাতন করা হয় বলে জানান তিনি।

শেয়ার