ইউপি নির্বাচন জেলা প্রশাসককেও মনোনয়নপত্র গ্রহণের নির্দেশ

up nir

সমাজের কথা ডেস্ক॥ প্রার্থীদের সুরক্ষায় এবার জেলা প্রশাসকদেরও মনোনয়নপত্র গ্রহণের নির্দেশ দিল নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এক্ষেত্রে মনোনয়নপত্র গ্রহণ করবেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা।
ইসির উপ-সচিব মো. সামসুল স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে মঙ্গলবার (০১ মার্চ) জেলা প্রশাসকদের এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
এতে বলা হয়েছে-ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তাকে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০ এর ৫ বিধির (২) উপবিধি অনুসারে সহকারী রিটার্নিং অফিসার নিয়োগ করে মনোনয়নপত্র গ্রহণ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মনোনয়নপত্র জমা নিয়ে যথাযথ নিরাপত্তা সহকারে ওই দিনই রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে বুঝিয়ে দেবেন।
চিঠিটি সকল সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে। যার অনুলিপি মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব, র‌্যাবের মহাপরিচালক, সকল বিভাগীয় কমিশনার, উপ-মহা পুলিশপরিদর্শক ও পুলিশ সুপারদের দেওয়া হয়েছে।
ইউপি নির্বাচনের প্রথম ধাপে বিএনপি ৭০টি ইউপিতে প্রার্থী দেয়নি। দলটির দাবি, সরকার দলীয়রা তাদের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দিতে দেয়নি। দলটির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগও দাখিল করেছেন নির্বাচন কমিশনে। যদিও ইসি সচিব সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, বিএনপির কোনো অভিযোগ সুনির্দিষ্ট নয়। সবগুলো অভিযোগই ঢালাও। তাই সেসব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কারো বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব নয়।
এদিকে অভিযোগের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ ইতিমধ্যে গণমাধ্যমকে বলেছেন, প্রার্থীরা যাতে মনোনয়নপত্র বাধা দেওয়ার অভিযোগ আর না করতে পারেন সেজন্য আমরা নিরাপদ জায়গা খুঁজছি। আর এরই অংশ হিসেবে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়েও মনোনয়নপত্র জমাদানের সুযোগ সৃষ্টি করলো ইসি। আর এই ব্যবস্থাটি দেশের ইতিহাসে প্রথম ঘটনা।
আগামী ২২ মার্চ থেকে দেশের ইউপিগুলোর নির্বাচন শুরু হবে। এক্ষেত্রে ছয় দফায় ভোটগ্রহণ করবে ইসি। প্রথম ধাপের নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া সময় শেষ হয়েছে আরো আগে। দ্বিতীয় দফায় ৬৫৭ ইউপির ভোট হবে আগামী ৩১ মার্চ। এ দফার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় বুধবার (০২ মার্চ)। এরপর তৃতীয় দফায় ২৩ এপ্রিল হবে ৭১১টি ও চতুর্থ দফায় ৭মে ৭২৮টি ইউপিতে ভোট হবে। এছাড়াও পঞ্চম দফায় ২৮ মে ৭১৪টি এবং ষষ্ঠ দফায় ৪ জুন ৬৬০টি ইউপির ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি।
এদিকে প্রার্থী ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য সকল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদেরও (ওসি) নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সে নির্দেশের চিঠি পাঠিয়েছেন উপ-সচিব মো. সামসুল আলম।

শেয়ার