যশোরে এসপির অপসারণ দাবিতে মানববন্ধনে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ॥ সাংবাদিকদের পেশাগত প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে যশোরে অতীতে কেউ টিকে থাকতে পারেনি

milo
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরের পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন (জেইউজে)।
সোমবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন, ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান ভিটু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের জেলা সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান, কালের কন্ঠের বিশেষ প্রতিনিধি ফখরে আলম, যশোর সংবাদপত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন, সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সভাপতি নূর ইসলাম, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের আহবায়ক কমিটির সদস্য ওহাবুজ্জামন ঝন্টু, সাকিরুল কবীর রিটন প্রমুখ। মানববন্ধন পরিচালনা করেন যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক এইচআর তুহিন।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তিনি যশোরের সবশ্রেণি পেশার মানুষের কাছে আতংকে পরিণত হয়েছেন। মানুষকে হয়রানি, মিথ্যা মামলা, উচ্ছেদ ও হুমকি দিয়ে কণ্ঠরোধের অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি চরম অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছেন। সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিতে তার অপচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। অতীতে কেউ যশোরবাসীর সঙ্গে এমন আচরণ করে টিকে থাকতে পারেনি। যশোরবাসীকে সঙ্গে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে তার অপকর্মের বিরুদ্ধে।
অবিলম্বে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের অপসারণের দাবি জানিয়ে নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, গত ১১ ফেব্রুয়ারি যশোর শহরের গাড়িখানা রোডের ‘বিরোধপূর্ণ’ জমিতে বসবাসকারী ৪০টি পরিবার ও ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান জোরপূর্বক উচ্ছেদের পর দখল করে নেয় পুলিশ। ১৯১০ সালে সরকারি জমি বরাদ্দ নিয়ে এই পরিবারগুলো বংশানুক্রমে এই সম্পত্তি ভোগ দখল করে আসছেন। আর জেলা প্রশাসন থেকে বরাদ্দ দেয়া জমিটি নিজেদের দাবি করে পুলিশ। এ নিয়ে আদালতে মামলাও বিচারাধীন। কিন্তু এরইমধ্যে রাতের অন্ধকারে হঠাৎ করে পুলিশ ‘গায়ের জোরে’ দখলে নেয় এই এলাকার দোকানপাট। এখন সেখানে ঝোলানো হয়েছে পুলিশ ক্লাবের সাইনবোর্ড। ক্ষতিগ্রস্থদের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় মানবাধিকার সংগঠক রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয়কৃষ্ণ মল্লিককেও নানাভাবে পুলিশের পক্ষ থেকে হুমকি ধামকি দেয়া হয়েছে। গত ২২ ফেব্রুয়ারি সকালে ফোনে প্রেসক্লাব যশোরের সম্পাদক তৌহিদুর রহমানকে হুমকি দেন পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান। পুলিশি উচ্ছেদ অভিযান নিয়ে গণমাধ্যমে ধারাবাহিক সংবাদ প্রচার করা হয়। এই সংবাদ প্রচার করায় যশোরের সাংবাদিকদের উপর ক্ষিপ্ত হন। এছাড়াও গত ২১ ফেব্রুয়ারি প্রথম প্রহরে সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজ (এমএম) ক্যাম্পাসে অবস্থিত যশোরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। পুলিশ হামলাকারীকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করলেও অজ্ঞাত কারণে ছেড়ে দেয়। ওই রাতেই কলেজ ক্যাম্পাসের আসাদ হলে অভিযানের নামে পুলিশ তা-ব চালায়। সেখান থেকে ১০জন ছাত্রকে পুলিশ আটক করে বোমা বিস্ফোরণ মামলায় ফাঁসিয়েছে। পুলিশ সুপারের বেপরোয়া আচরণে সচেতন যশোরবাসী ফুঁসে উঠেছে। অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত লাগাতর কর্মসূচি অব্যাহত রাখার দাবি জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ। মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএফইজে ও প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মনোতোষ বসু, বিএফইজে’র সাবেক সহসভাপতি সাজেদ রহমান বকুল, সাবেক যুগ্ম মহাসচিব ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল, বিএফইউজে সদস্য প্রণব দাস, মনিরুজ্জামান মুনির, জেইউজে সাবেক সভাপতি আমিনুর রহমান মামুন, সাজ্জাদ গণি খান রিমন প্রমুখ।

শেয়ার