ফুলের টানে জেলখানায়

flower

সমাজের কথা ডেস্ক॥ চীনের একটি কারাগারের ভেতরে চেরি ফুলের সৌন্দর্য দেখতে ভিড় জমাচ্ছেন ব্যাপক সংখ্যক দর্শনার্থী।
বিবিসি লিখেছে, কারা কর্মকর্তাদের বাড়ির সামনের অংশে চেরি বাগানে ফুল দেখার জন্য কেউ কেউ কারাগারের দেয়াল টপকানোর চেষ্টাও করছেন।
গত বছরগুলোতে দক্ষিণাঞ্চলের শহর গুইলিনের ওই কারাগারের ভেতরে দর্শনার্থীদের প্রবেশাধিকার সহজ ছিল। কিন্তু এ বছর চেরি ফুল দেখতে হাজার হাজার মানুষের ভিড় সামলাতে কারা কর্তৃপক্ষকে হিমশিম খেতে হচ্ছে।
দর্শনার্থীদের নিরুৎসাহিত করতে জেলখানার প্রবেশ মুখে ‘কারাগার প্রাঙ্গণ পর্যটন কেন্দ্র নয়’ শীর্ষক সঙ্কেতও ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে। কিন্তু তাতেও খুব একটা কাজ হচ্ছে না।
বাধ্য হয়ে জেল কর্তৃপক্ষ কারাগারের ভেতরে দর্শনার্থীদের পাশাপাশি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চলাচলেও নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছে বলে স্থানীয় পত্রিকা নাঙ্গুও জাওবাও’র বরাতে বিবিসি জানিয়েছে।
কারারক্ষীরা জানিয়েছেন, গেল কয়েক বছর তারা অল্প কিছু সংখ্যক আগ্রহী দর্শনার্থীকে ভেতরে ঢোকার অনুমতি দিয়েছিলেন। কিন্তু এবছর ছড়িয়ে থাকা চেরি ফুলের ‘অভাবনীয় সৌন্দর্য, দর্শনার্থীর সংখ্যা ‘সীমার বাইরে’ নিয়ে গেছে।
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বেশ কিছু ছবিতে উৎসাহী অনেককে কারাগারের দেয়াল টপকে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করতে দেখা গেছে। অনেকেই কারাগারের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা পুলিশ সদস্যদের কাছে ভেতরে ঢোকার জন্য ‘টিকেট’ চাইছে। অথচ এ ধরনের কোনো ব্যবস্থা সেখানে নেই। মাইক্রোব্লগিং সাইট সিনা উইবু’তে বিস্ময় প্রকাশ করে এক ব্যক্তি ‘কারাগারে থাকা অপরাধীরা সবাই মালির কাজে পারদর্শী কিনা’ এমনটা জানতে চেয়েছেন।
অনেকেই কারাগারের ভেতরে দর্শনার্থী প্রবেশের সুযোগ চেয়েছে। “এটা সত্যিই অনেক সুন্দর; সবাইকে তা উপভোগের সুযোগ দেয়া উচিত”, বলেন এক ব্যবহারকারী।
ভেতরে যাওয়ার জন্য ‘সৃজনশীল’ এক উপায়ও বাতলেছেন এক ব্যবহারকারী। তিনি লিখেছেন, “ভেতরে যেতে চান, খুব সোজা; ছোটখাট কোনো অপরাধ করে ফেলুন।”

কেউ কেউ অবশ্য কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়ে ‘শঙ্কা’ প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, দেয়াল টপকে ভেতরে ঢোকার ছবিগুলোই বলে দেয়, সেখানকার নিরাপত্তা কতটা নাজুক।

শেয়ার