ভয়াবহ আত্মঘাতী হামলায় বাগদাদে নিহত ৭০

atto

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইরাকের রাজধানী বাগদাদে জোড়া আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্ততপক্ষে ৭০ জন নিহত হয়েছেন।
রোববার বাগদাদের শিয়া অধ্যুষিত সদর শহরে চালানো এই হামলা দুটি চলতি বছর দেশটির রাজধানীতে চালানো সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলা। জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) হামলার দায় স্বীকার করেছে।
পুলিশের সূত্রগুলো জানিয়েছে, দুই হামলাকারী মোটরসাইকেল চালিয়ে সদর সিটির জনাকীর্ণ এক মোবাইল ফোনের মার্কেটে এসে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিজেদের উড়িয়ে দেয়।
এতে নিহতদের পাশাপাশি আরো একশ জনেরও বেশি মানুষ আহত হন।
বিস্ফোরণস্থলে প্রচুর রক্ত, জুতা ও মোবাইল ফোন পড়ে থাকতে দেখেছেন বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক সাংবাদিক। উদ্ধারকাজ চলাকালে আরো হামলা হতে পারে আশঙ্কায় জায়গাটিতে চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।
অনলাইনে প্রচারিত এক বিবৃতিতে হামলার দায় স্বীকার করে আইএস বলেছে, “তারা যেখানেই থাকুক, আমাদের তলোয়ার প্রত্যাখ্যানকারী বহুত্ববাদীদের মাথা কাটা কখনো বন্ধ করবে না।”
‘প্রত্যাখ্যানকারী বহুত্ববাদী’ বলতে গোষ্ঠীটি শিয়া মুসলিমদের বুঝিয়ে থাকে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনীর বিমান হামলার ছত্রছায়ায় ইরাকি বাহিনীগুলো পশ্চিমাঞ্চলীয় আনবার প্রদেশ থেকে আইএসকে হটিয়ে দিয়েছে। এবার আইএসের দখল থেকে উত্তরাঞ্চলীয় শহর মসুল মুক্ত করতে অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে তারা।
কিন্তু জঙ্গিরা এখনো তাদের নিয়ন্ত্রিত এলাকার বাইরে হামলা চালানোর ক্ষমতা রাখে।
রোববার ভোরে আবু গারিবের একটি খাদ্য গুদামে ও একটি কবরস্থানে নিরাপত্তা রক্ষীদের অবস্থানে আইএসের আত্মঘাতী ও বন্দুকধারীদের যৌথ হামলায় বাহিনীর অন্ততপেক্ষ ১৭ সদস্য নিহত হন।
নিরাপত্তা বাহিনী রোববার সন্ধ্যার মধ্যে ওই এলাকায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করলেও শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সংঘর্ষ চলছিল।

ইরাকের শিয়াদের উপর জঙ্গিরা নিয়মিতই প্রাণঘাতী হামলা চালিয়ে আসছে। গেল বৃহস্পতিবার বাগদাদের একটি শিয়া মসজিদে আইএসের দুই আত্মঘাতীর বোমা হামলায় ১৫ জন নিহত হন।

শেয়ার