চৌগাছায় সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহারের মাধ্যমে ॥ বিষমুক্ত সবজি চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন চাষিরা

sexferomen
ইয়াকুব আলী, চৌগাছা॥ যশোরের চৌগাছা উপজেলায় সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহারের মাধ্যমে বিষ মুক্ত সবজি ঊৎপাদন দিন দিন বাড়ছে। এই পদ্ধতিতে বিষমুক্ত উৎপাদিত সবজি একদিকে স্বাস্থ্যর জন্য উপকারী অন্যদিকে স্বল্প খরচ হওয়ায় চাষিরা এই চাষে ঝুঁকে পড়েছেন।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়,চলতি রবি মৌসুমে উপজেলা ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় বি¯তৃর্ণ সবজির ক্ষেতে সেক্্র ফেরোমন ফাদঁ ব্যবহার করে সবজি চাষ করা হচ্ছে। এই ফাঁদগুলো প্লাসটিকের গোটার তৈরি। আর এই কোটার মধ্যে এক ধরনের স্ত্রী পোকার সেন্ট (লিওর) দিয়ে সবজির ক্ষেতে ঝুঁলিয়ে রাখা হয়েছে। স্ত্রী পোকার কাজ হচ্ছে ডিম পাড়া। আর পুরুষ পোকা শুধুই বংশ বিস্তার করে। সবচেয়ে মজার বিষয় হলো এই কোটার মধ্যে এক ধরনের স্ত্রী পোকার সেন্ট (লিওর) দিয়ে সবজির ক্ষেতে ঝুঁলিয়ে রাখা হয়েছে। সবজির ক্ষেতে আসা ক্ষতিকর পুরুষ পোকাগুলো স্ত্রী পোকার সাথে সেক্্র মিলনের জন্য ক্ষেতে ছুটে আসছে। আর ওই প্লস্টিক কোটার মধ্যে পড়ছে আর পুরুষ পোকাগুলো মারা যাচ্ছে। তাই পুরুষ পোকার সংকট বাড়ছে। ফলে পোকার বংশ বিস্তারও হ্রাস পচ্ছে বলে কৃষিবিদরা মনে করছেন। এ পদ্ধতিতে এ উপজেলায় চলতি রবি মৌসুমে উপজেলা ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রায় ১শ হেক্টর জমিতে বিষমুক্ত সবজি চাষ হয়েছে। এ পদ্ধতিতে উৎপাদিত সবজি স্বাস্থ্যর জন্য খুবই উপকারী। এই সবজি বাজারে চাহিদাও অনেক বেশী। এ বছর এ পদ্ধতিতে উৎপাদিত সবজি স্থানীয়ভাবে চাহিদা পূরন করা সম্ভাব না হলেও কিছু কিছু সবজি বাইরে রপ্তানি করা হচ্ছে।
উপজেলার নারায়নপুর ইউনিয়নের চাদপাড়া গ্রামের আব্দুল আলিম ১ বিঘা, ওয়াহেদ আলী ১০ কাঠা ও আসাদুল ইসলাম ৩বিঘা জমিতে ডিসেম্বর মাসে বেগুন রোপন করেন। এখন বেগুন গাছে বেগুন আর ফুলে ভরে গেছে। এসব ক্ষেতে সেক্স ফেরামন পদ্ধতি ব্যবহার করায় পোকার বালাই নেই। ক্ষেতে শুধুমাত্র সার, পানি দিতে হচ্ছে। সপ্তাহে বিঘাপ্রতি ১৫/২০ মন বেগুন উঠছে। বাজার দরও ভাল যাচ্ছে কেজি ২০/২৫টাকা। প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এ মৌসুমে বিঘা প্রতি ১থেকে দেড়লাখ টাকার বেগুন বিক্রি করতে পারবেন বলে চাষীরা মনে করছেন। অপরদিকে হাজরাখানা গ্রামের শহিনুর রহমান ১বিঘা,ইছাহক ১বিঘা, মোস্তফা ৩বিঘা জমিতে পটল চাষ করেছেন। এসব ক্ষেতে তারা একই পদ্ধতিতে বিষমুক্ত পটল চাষ করছেন।এসব চাষীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে,সেক্্র ফেরমন পদ্ধতিতে সবজি উৎপাদন খরচ অনেক কম। বেগুন বিঘা প্রতি চারা,সার,সেচ মিলে ১৫/২০ হাজার খরচ হয়। তবে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে বিঘা প্রতি ১থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হতে পারে। অনুরুপভাবে পটল চাষেও খরচ খুবই কম হয়। বিঘাপ্রতি ১০/১২ হাজার খরচ হয়। আর বিঘা প্রতি ৭০থেকে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়। এ বিষয়ে চাদপাড়া গ্রামের কৃষি ব্লকের কৃষি সহকারী কর্মকর্তা তাপস কুমার ও হাজরাখানা গ্রামের কৃষি ব্লকের কৃষি সহকারী কর্র্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম জানান,উপজেলার সবজি চাষীরা বিষমুক্ত সবজি চাষে দিন দিন আগ্রহী হয়ে উঠছেন। এ পদ্ধতিতে সবজি চাষ করে চাষীরা আর্থিকভাবে অধিক লাভবান হচ্ছেন। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে এম শাহাবুদ্দিন আহাম্মদ বলেন, সেক্স ফেরোমন পদ্ধতির উৎপাদিত সবজি একদিকে স্বাস্থ্যর জন্য উপকারী অন্যদিকে উৎপাদন খরচও বেশ কম হয়। তাই সবজি চাষে চাষীরা ঝুঁকে পড়েছেন। এ বছর উপজেলার বিভিন্ন মাঠে প্রায় ১ হেক্টর জমিতে এই সেক্স ফেরোমন পদ্ধতিতে বিষমুক্ত সবজি চাষ হয়েছে।

শেয়ার