নিজেদের প্রতি কোনো বিশ্বাস নেই বিএনপির: তথ্যমন্ত্রী

inu
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির করা কারচুপির অভিযোগ নাকচ করে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপির আসলে নিজেদের প্রতি কোনো বিশ্বাস নেই।

শনিবার বেলা ১১টার দিকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় এক অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার আগে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “তফসিল ঘোষণার পর এখন পর্যন্ত এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি- যেটা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কারণ আছে।

“নব্বইয়ের পর থেকে বিএনপি যতবার নির্বাচনে পরাজিত হয়েছে, ততবারই তারা সব আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করেছে। বিএনপির আসলে তাদের প্রতি কোনো বিশ্বাস নেই।”

দলীয় প্রতীক ও মনোনয়নে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের আইন হওয়ার পর পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীদের ভরাডুবির পর থেকেই কারচুপির অভিযোগ করে আসছে বিএনপি।

সম্প্রতি ঘোষিত হওয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও কারচুপির আশঙ্কা প্রকাশ করে গণমাধ্যমে নির্বাচনের কমিশনের (ইসি) প্রতি ‘পক্ষপাতিত্বের’ অভিযোগ করেছে বিএনপি।

শুক্রবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই অভিযোগ করে বলেন, “আমরা জানতে পেরেছি, ইউপি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য সংখ্যা কমিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করছে নির্বাচন কমিশন। এমন কি নির্দেশনাও শিথিল করা হয়েছে।

“কেন এটা করা হচ্ছে- এটা সবার কাছে অত্যন্ত স্পষ্ট। এসব পরিকল্পনা ও নির্দেশনার উদ্দেশ্যই হচ্ছে- ইউপি নির্বাচনে শাসক দলের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের জিতিয়ে দেওয়ার মহাপরিকল্পনা।”

তবে বিএনপির এসব অভিযোগ নাকচ করে দলটি নির্বাচনী পদ্ধতিকে ব্যবহার করে সমস্যা তৈরি ও চক্রান্তের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলের একটা পায়তারা করছে বলে মনে করেন তথ্যমন্ত্রী।

“দেশে একটা অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির জন্য বিএনপি আসলে নির্বাচনী পদ্ধতিটাকে ব্যবহার করতে চায়। সেই সুযোগে, চক্রান্তের মধ্য দিয়ে ক্ষমতা দখলের একটা পায়তারা করছে।

“নির্বাচন নয়- তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে এ উপলক্ষ্যে একটা সমস্যা তৈরি করা। সেটা করতে পারলেই কিছুদিন চক্রান্তের জাল বিস্তার করবে। কিন্তু সেই দিন শেষ হয়ে গিয়েছে।”

মহাজোটের শরীক দল জাসদ নেতা হাসানুল হক ইনু আরও বলেন, “আমাদের সরকার এবং প্রশাসন যেভাবে উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচন করেছে- সেইভাবেই ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হবে। পৌর নির্বাচন নিয়ে বিএনপি কোনো লিখিত অভিযোগ করেনি।

“ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হচ্ছে, সবাই প্রার্থী দিয়েছে। ৮০০ জনের মধ্যে ৫০ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে, এটা অতীতেও হয়েছে। এটা এমন কোনো ব্যাপার না। ”

নির্বাচনকে ‘চক্রান্ত তৈরির কাজে’ ব্যবহার না করে বিএনপিকে তাতে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী।

ভেড়ামারা ডিগ্রি কলেজের নবীনবরণ ও পুরস্কার বিতরণীতে যোগ দেওয়ার আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী। পরে নবীনবরণে উপস্থিত থেকে তিনি ছাত্রছাত্রীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

এসময় নারী জোটের কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক আফরোজা হক রীনা, জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, ভেড়ামারার ইউএনও শান্তি মনি চাকমাসহ অন্যরা মন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার