ছুটি না দেয়ায় বসকে কামড়ে দিলেন ডাক্তার

doc
সমাজের কথা ডেস্ক॥ লাতিন আমেকিার ফুটবলার সুয়ারেজ বা যুক্তরাষ্ট্রের বক্সার মাইক টাইসন নয় এবার এটা খাঁটি বাঙালিরই কর্ম। অবশ্য তার হাতে ছুড়ি কাচি থাকা সত্ত্বেও দাঁতই কেন ব্যবহার করলেন তা জানা যায়নি। ঘটনাটা বৃহস্পতিবারের। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ সদর হাসপাতালের সুপারকে কামড়ে রক্তাক্ত করেছেন এক ডাক্তার।
সুপার অনুপকুমার হাজরা বলেন, তার হাসপাতালের চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ কমল সরকারকে এক মাসের ছুটি দিতে রাজি হননি। তাই তিনি হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির সদস্য অনুপম সাহাকে নিয়ে তার ওপর চড়াও হন। ধস্তাধস্তির মধ্যে এই অনুপম তা বাঁ হাতের মধ্যমায় কামড়ে দিয়েছেন!
এদিকে জানা গেছে, প্যাথলজিস্ট অনুপম ওই হাসপাতালে চাকরি করেন না। তবে তিনি ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (আইএমএ) জেলা সম্পাদক। কেন তিনি চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞের হয়ে ছুটির দাবি জানাতে সুপারের চেম্বারে হাজির হলেন, তা নিয়ে চলছে তর্ক।
তবে এ ওই তর্ককে ছাপিয়ে গেছে নিয়ে রসিকতা। গত বিশ্বকাপে ইতালির চিয়েলিনিকে কামড়ে দিয়েছিলেন সুয়ারেজ। বক্সিং রিংয়ে প্রতিপক্ষ ইভান্ডার হোলিফিল্ডের কান কামড়ে ছিঁড়ে নিয়েছিলেন টাইসন। এবার বাংলাতেও মিললো এমন লোক।
এক ডাক্তার তো রসিকতা করে বলেছেন, আজকাল কামড়ানোর লোকও ভাড়া পাওয়া যাচ্ছে দেখছি! গুরুতর জখম সুপার এখন নিজের হাসপাতালেরই ক্রিটিকাল কেয়ার ইউনিটে চিকিৎসাধীন। পুলিশের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। অবশ্য পাল্টা অভিযোগ দিয়েছেন কমল ও অনুপম। সুপারের বক্তব্য, দীর্ঘদিন ধরেই কাজে গাফিলতি করছেন চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ কমলবাবু।
আর কমলের দাবি, ১ মার্চ থেকে তার মেয়ের দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা। তাই কলকাতা যাওয়া জরুরি। কিন্তু ছুটি চাইতেই সুপার তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন।
প্রসঙ্গত, ডা. কমল তৃণমূল প্রভাবিত চিকিত্সক সংগঠন প্রোগ্রেসিভ ডক্টর্স অ্যাসোসিয়েশনের (পিডিএ) উত্তর দিনাজপুর জেলা সভাপতি। আবার সুপার-সহ তিন ডাক্তারই জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান অমল আচার্যের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত।

শেয়ার