যশোরে এসপির অপসারণ দাবিতে দুই কলেজে শিক্ষার্থীদের অবস্থান কর্মসূচি ও ক্লাস বর্জন

m clas
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর সরকারি এমএম কলেজের শহীদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে বোমা বিস্ফোরণ ও গুলিবর্ষণকারী প্রকৃত সন্ত্রাসীদের আটকের দাবিতে মানববন্ধন ও করেছে শিক্ষার্থীরা। একই সাথে এঘটনায় আটক নিরীহ ছাত্রদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধনের পাশাপাশি ক্লাসবর্জন শুরু করা হয়েছে। বুধবার থেকে ওই শিক্ষার্থীরা যশোর সরকারি এম এম কলেজ ও সরকারি সিটি কলেজে অনির্দিষ্টকালের জন্য এ কর্মসূচি পালন শুরু করছেন।
মানববন্ধন সূত্রে জানা গেছে, গত ২১ একুশের প্রথম প্রহরে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা বোমা বিস্ফোরণ ও গুলি বর্ষণ করে। এঘটনায় পুলিশ প্রকৃত দোষীদের রক্ষা করতে নিরীহ ১০জন শির্ক্ষাথীকে আটক করে। পাশাপাশি এঘটনায় দু’টি মামলা দায়ের করে। যার একটি মামলায় চারজনের নাম উল্লেখ করে এবং অপরটিতে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়। কিন্তু এঘটনায় যাদের আটক করা হয়েছে তাদের অনেকেই ওইদিন শহীদ মিনারে যায়নি। পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের নির্দেশে মাঠ পর্যায়ের কিছু কর্মকর্তা অতি উৎসাহী হয়ে এসকল নিরীহ শিক্ষার্থীদের আটক করে মিথ্যা মামলা দেয়।
ওই মামলা প্রত্যাহার এবং আটক নিরীহ শিক্ষার্থীদের মুক্তি দাবি করা হয়েছে। একই সাথে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের অপসারণও দাবি করা হয়। বুধবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত স্ব-স্ব কলেজের শহীদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষার্থীরা। সাধারণ ছাত্রছাত্রীর ব্যানারে এ কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে।
সাধারণ শিক্ষার্থীদের বক্তব্য, তাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি পালন করবেন। গত বুধবার এম এম কলেজ ও সিটি কলেজে মানববন্ধন পালনকালে শিক্ষার্থীরা অর্নিষ্টকালের ক্লাসবর্জন কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

শেয়ার