চৌগাছার স্বরূপদাহ ইউনিয়ন নির্বাচন॥ মাঠ চষছেন আ’লীগের সম্ভাব্য ৩ প্রার্থী॥ বসে নেই জাপা নেতাও

Upojela nirbachon
ইয়াকুব আলী, চৌগাছা॥ পৌর নির্বাচন শেষ হতে না হতেই যশোরের চৌগাছার স্বরূপদাহ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামীলীগের ৩ সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী দলীয় নৌকা প্রতীক পক্ষে আনতে প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগ জোরদার করেছেন। এসব প্রার্থী দলীয় টিকিটের জন্য জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের ক্ষমতাধর নেতাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা ও স্থানীয় নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে চালাচ্ছেন প্রচারণা। সাধারন ভোটারদের কাছে দোয়া ও সমর্থন চাওয়ার পাশাপাশি বলছেন ইউনিয়নবাসিকে নিয়ে তাদের স্বপ্নের কথা। ভোটার পক্ষে টানতে দেয়া হচ্ছে নানা প্রতিশ্রুতিও। তবে বসে নেই জাপা নেতা নুরুল কদরও। তিনি সমানতালে প্রচারণা চালাচ্ছেন।
সূত্র জানায়, উপজেলার স্বরূপদাহ ইউনিয়ন ২৬টি গ্রাম নিয়ে গঠিত। বর্তমান ভোটার প্রায় ১৭ হাজার সংখ্যা। এবারের নির্বাচনে স্বরূপদাহ ইউনিয়নে একাধিক সম্ভাব্য প্রার্থী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। তারা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব সুলাইমান হোসেন ফাটা কেস্ট ও সাধারন সম্পাদক শেখ আনোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক সানোয়ার হোসেন বকুল ৯টি ওর্য়াডের সাধারন ভোটারদের কাছে দোয়া ও সমর্থন চাচ্ছেন। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক নুরুল কদরও নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। এছাড়া বিএনপি নেতা সহিদুল ইসলাম ও জামায়াত নেতা সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মাও. আব্দুল লতিফের নাম শোনা গেলেও তারা এখনও নির্বাচনী প্রচারণায় এখনও মাঠে নামেনি। তারা উভয়েই ধীর গতিতে হাটছেন। বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের একাধিক সম্ভাব্য প্রার্থী মাঠে থাকায় দলীয় সমর্থন পেতে তারা দৌড় ঝাপ শুরু করেছেন। তারা জেলা ও উপজেলা দলীয় নেতা-কমীদের সমর্থন পেতে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে করছেন। পাশাপাশি নেতাদের নজর কাড়তে দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচিতে তার সমর্থিত কর্র্মীদের উপস্থিতি বেশী করছেন বলে স্থানীদের একাধিক সূত্রে জানা গেছে। এ সকল প্রার্থীরা সাধারন ভোটারদের মন জয় করতে নানা কৌশল অবলম্বন করছেন। তারা ব্যক্তিগত ও দলীয় সহোযোগীতায় এলাকার রাস্তাঘাট, ব্রীজ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। এ ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী আলহাজ সুলাইমান হোসেন (ফাটা কেস্ট) দীর্ঘদিন ধরে কুয়েত রাজ্য শাখার আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সেখান থেকে বেশকয়েক বছর আগে দেশে ফিরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগে যোগ দেন। ২০১৩ সালের ৫ মে সভাপতি পদে মনোনীত হন তিনি। তিনি ব্যক্তিগত ও দলীয় সমর্থক নিয়ে ইউনিয়নের স্কুল-মাদ্রাসা, মসজিদ, খেলা ধুলার ও সংস্কৃতির উন্নয়নে ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন বলে অনেকে জানিয়েছেন। তিনি দলীয় প্রতীক নৌকা পাবার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। তিনি বলেন আমি আমরন মানুষের সেবা করে যেতে চাই। তাই আসন্ন ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান সকলের দোয়া ও সমর্থন চেয়েছেন। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রাথী শেখ মো: আনোয়ার হোসেন এ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক। তিনি দলীয় নৌকা প্রতীক পেতে মরিয়া হয়ে কাজ শুরু করেছেন। তিনি দলীয় নৌকা প্রতীক পেলে দীর্ঘদিনের আওয়ামীলীগের হারানো চেয়ারম্যান পদটি উদ্ধার করা সম্ভাব হবে মনে করছেন। তিনি ইউনিয়নের দলীয় নেতা-কর্মীদের কাছে দোয় সমর্থন চেয়েছেন। এছাড়া এ ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সানোয়ার হোসেন বকুল দলীয় নৌকা প্রতিক পাবার জন্য ৯টি ওয়ার্ডে সাধারন ভোটারদের কাছে দোয়া সমর্থন চাচ্ছেন। তিনি চেয়ারম্যান পদে বিজয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদি। এ ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও জাতীয় পার্টির উপজেলা সাধারণ সম্পাদক নুরুল কদর জানান আমরা যেহেতু মহাজোটে আছি। তাই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ এ ইউনিয়নে তাদের দলীয় সমর্থীত প্রার্থী না দেওয়ার জন্য জেলা ও উপজেলা নেতাদের কাছে জোর দাবী করছি। একই সাথে আমি এ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান থাকা কালীন সময়ে রাস্তা ঘাট, ব্রীজ, কালভার্ট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দিরের ব্যাপক উন্নয়ন মূলক কাজ করেছি। পাশাপাশি ইউনিয়নের দলমত নির্বিশেষে সকল শ্রেনী পেশার মানুষের সুখ-দুঃখের সাথী ছিলাম। ফলে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে ইউনিয়নবাসি আবারও আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচন করবেন।

শেয়ার