বাঙালির স্বকীয়তা ছড়িয়ে দিন বিশ্বে: প্রধানমন্ত্রী

filZZZe
সমাজের কথা ডেস্ক॥ শিল্প-সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাঙালি জাতির স্বকীয়তাকে নিজের মধ্যে ধারণ করে তা আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তুলে ধরার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
শনিবার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে একুশে পদক প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “বাঙালি হিসেবে আমাদের যে সংস্কৃতি, শিল্প-সাহিত্য, সবকিছুরই একটা আলাদা ঐতিহ্য রয়েছে। একটা বৈশিষ্ট রয়েছে, স্বকীয়তা রয়েছে।
“আমাদের তা ধারণ করতে হবে। আমাদের আগামী প্রজন্মকে তা শিক্ষা দিতে হবে। সেই সাথে সাথে ঐতিহ্যকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তুলে ধরতে হবে।”
বিশ্বসভায় মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার লক্ষ্যে ‘বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সংগ্রামের মধ্য দিয়ে অর্জিত বিজয়’ ধরে রেখে এগিয়ে যেতে হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
“আর বিশ্বসভায় মর্যাদার আসনে তখনই প্রতিষ্ঠিত হওয়া সম্ভব হবে যখন এ দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ঘটবে। আমি সত্যিই খুব আশাবাদী, বাংলাদেশ ইতোমধ্যে সারা বিশ্বে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে একটা অবস্থান তৈরি করেছে।”
বাংলাদেশে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার মর্যাদা থাকার এবং যার যার ধর্ম সম্মানের সঙ্গে পালন করতে পারার অধিকারের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, “একটা অসাম্প্রদায়িক চেতনার মধ্য দিয়েই আমাদের স্বাধীনতা অর্জন।”
বিভিন্ন ক্ষেত্রে ‘গৌরবোজ্জল ও প্রশংসনীয়’ অবদানের জন্য এবছর ১৬ জনকে একুশে পদক দেওয়া হয় এ অনুষ্ঠানে। তাদের মধ্যে ১৪ জন নিজে উপস্থিত ছিলেন। আর মরণোত্তর পদক পাওয়া দুজনের স্ত্রী উপস্থিত ছিলেন এ অনুষ্ঠানে। প্রধানমন্ত্রী তাদের হাতে একুশে পদক ও সম্মানীর চেক তুলে দেন।
বক্তব্যে একুশের চেতনা ও মাতৃভাষা রক্ষা নিয়েও কথা বলেন শেখ হাসিনা।
ভাষা আন্দোলনে শহীদদের আত্মত্যাগ স্মরণ করেন তিনি বলেন, “আমরা কখনও মাথা নত করব না, একুশ আমাদের তা শিখিয়েছে। একটি জাতিকে ধ্বংস করার যে অপচেষ্টা, সেটাই করা হয়েছিল আমাদের ভাষার ওপর আঘাত দিয়ে।”
১৯৯৯ সালে জাতিসংঘের ইউনেস্কো থেকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি পাওয়ার ক্ষেত্রে সেসময় তার নেতৃত্বাধীন সরকারের ভূমিকার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। এ বিষয়ে কানাডা প্রবাসী রফিকুল ইসলাম ও আব্দুস সালামসহ সংশ্লিষ্টদের ভূমিকাও স্মরণ করেন তিনি।
“বিশ্বব্যাপী এই দিবসটি যাতে পালন হয় সে পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি এবং বিভিন্ন ভাষায় একুশে ফেব্রুয়ারির যে ইতিহাস, সেটা পৌঁছে দেওয়ারও আমরা ব্যবস্থা করেছি। সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়কে আমি একটু অনুরোধ করব এ ব্যাপারে আরও কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করতে।”

শেয়ার